দীপেন গুপ্ত, পুরুলিয়া: পুরুলিয়া সফরে এসে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বলে গিয়েছিলেন বিমানবন্দর তৈরি করা হবে। মুখ্যমন্ত্রীর সেই ঘোষণার পর জেলাবাসীর পাশাপাশি খুশি শিল্পপতিরাও। শিল্পায়নের প্রসারে বিমানবন্দর তৈরির কথা বলেছিলেন তিনি। শহরের উপকন্ঠে পুরুলিয়া–বরাকর সড়কের মফস্‌সল থানার ছররায় একটি পরিত্যক্ত বিমানবন্দর রয়েছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় সেখানে জ্বালানি ভরতে বিমান ওঠানামা করত। দীর্ঘদিন পরিত্যক্ত অবস্থায় বিমানবন্দরটি পড়ে। 
অবশ্য ২০০৩–’‌০৪  সালে তৎকালীন বামফ্রন্ট সরকার সেটা চালু করার ব্যাপারে উদ্যেগী হলেও তেমন কোনও ফল হয়নি। জানা গেছে, ওই জমি কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতিরক্ষা দপ্তরের আওতাধীন। বাঘমুন্ডির বিধায়ক নেপাল মাহাতোর উদ্যোগে প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের থেকে রাজ্য সরকারের কাছে জমি হস্তান্তর করা হয়েছিল। কিন্তু তারপরও কাজ এগোয়নি। ২০০৮–’‌০৯ বর্ষে ফের একবার বিমানবন্দর তৈরির ব্যাপারে নেওয়া হয়েছিল উদ্যোগ। কিন্তু তখনও তেমন ফল হয়নি। পরে ফের ২০১১–’‌১২ সালে বিমানবন্দর তৈরির ব্যাপারে উদ্যোগ নেওয়া হলেও মেলেনি সফলতা। 
এবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির ঘোষণার পর আশার আলো দেখছেন জেলার প্রশাসনিক আধিকারিকরা। দেশ–বিদেশের বিভিন্ন প্রান্তের পর্যটকদের সঙ্গে অনেক বিদেশি পর্যটকরাও ছৌ–ঝুমুরের দেশে আসেন। 
এদিকে, ছররায় বিমানবন্দরের বিশাল এলাকা পড়ে রয়েছে, যেখানে খুব সহজেই বিমানবন্দর তৈরি করা সম্ভব বলে জানিয়েছেন প্রশাসনিক কর্তারা। দিনদিন বিভিন্ন দিক থেকে পুরুলিয়ার গুরুত্ব বাড়ছে। জেলায় শিল্পায়ন, গোটা বছর ধরে পর্যটকদের আনাগোনা, রামকৃষ্ণ মিশন, সৈনিক স্কুল, বহু ব্যবসায়ীর আসা–যাওয়া থেকে নানা ক্ষেত্রেই এখন এজেলায় বিকল্প পরিবহণ যোগাযোগ হিসেবে বিমানবন্দরের চাহিদা বাড়ছে। 
তাই সবদিক খতিয়ে মুখ্যমন্ত্রী এই ঘোষণা করেছেন বলে মনে করছে জেলা প্রশাসন। এখন তাঁর এই ঘোষণার পর থেকে জেলাবাসী বিমানবন্দর বাস্তবায়নের আশায় দিন গুনতে শুরু করেছেন। ‌পুরুলিয়া যেহেতু রাজ্যের প্রান্তিক জেলা। তাই পড়শি রাজ্য থেকেও অনেকে পুরুলিয়া হয়ে কলকাতায় আসেন। সেক্ষেত্রে রেল ও সড়কের বিকল্প যোগাযোগ হিসেবে আকাশপথ ব্যবহৃত হলে কলকাতার সঙ্গে অন্য রাজ্যগুলির সমন্বয় আরও বেড়ে যাবে। যেহেতু একসময় মাও তাণ্ডবে অশান্ত ছিল পুরুলিয়া, তাই অনেকেই এড়িয়ে চলতেন মানভূমকে। কিন্তু সেসব এখন অতীত, দাবি জেলাবাসীর।

 

 

এই জমিতেই বিমানবন্দর তৈরির পরিকল্পনা। ছবি: দীপেন গুপ্ত

জনপ্রিয়

Back To Top