আজকালের প্রতিবেদন- মোহনবাগানের জাপানি মিডফিল্ডার কিনাওয়াকি ইউতাকে কলকাতা ফুটবল লিগের ডার্বির আগে আনতে চেয়েছিলেন সৃঞ্জয় বসু–‌‌দেবাশিস দত্ত। কিন্তু বাগান ফুটবল সচিব স্বপন ব্যানার্জি প্রচারমাধ্যমকে জানান, ইউতার সঙ্গে ১ সেপ্টেম্বর থেকে ক্লাবের চুক্তি। তিনি ওই সময়ের পর আসবেন। তবে ওঁর এজেন্ট জানিয়েছেন, ইউতা কলকাতা লিগে খেলবেন না, সরাসরি মাঠে নামবেন আই লিগে। আজ অবশ্য তাঁর সই হয়ে যাচ্ছে। শনিবার রাতে কলকাতা পৌঁছে সোমবার সকালে মোহনবাগান মাঠে হালকা অনুশীলন শেষে ইউতা বলে দিলেন, বুধবার কাস্টমস ম্যাচে মাঠে নামা সম্ভব না হলেও কলকাতা লিগে মহমেডানের বিরুদ্ধে খেলতেও পারেন। অবশ্য কোচ চাইলে। পুরোপুরি ফিট হওয়ার সময় পাবেন তার আগে। দুই গোষ্ঠীর টানাপোড়েনের জন্যই কি ডার্বির আগে কলকাতায় আসা সম্ভব হল না?‌ চোখেমুখে আতঙ্ক ফুটে উঠল এই প্রশ্নে। ইউতা জানালেন, টাইফুনের জেরে গোটা দেশ লন্ডভন্ড। তাঁর বাড়িও প্রবলভাবে ক্ষতিগ্রস্ত। ওইসময় বাড়িতে ছিলেন। ভয় পেয়ে গিয়েছিলেন প্রচণ্ড। প্রাণে বেঁচে গেছেন বলে ঈশ্বরকে ধন্যবাদ। বললেন, ‘কলকাতায় আসা সম্ভব ছিল না। গত ২৫ বছরে জাপান এমন বিধ্বংসী টাইফুনের কবলে পড়েনি। বিশাল ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ওসাকা বিমানবন্দর পুরোপুরি বন্ধ। এখনও। ডোমেস্টিক কিছু বিমান চলছে। আমার বাড়িও টাইফুনের জন্য ক্ষতির মুখে পড়ে। ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতা। কলকাতা আসার জন্য অন্য রাজ্যে গিয়ে বিমান ধরতে হয়েছে। ওসাকা আর তার আশপাশে জীবনযাত্রা স্বাভাবিক হতে সময় লাগবে।’‌ কলকাতা বিমানবন্দরে মোহনবাগানের কোনও কর্তা না থাকার বিষয় নিয়ে আর কথা বাড়াতে চাননি ইউতা। বলেন, ‘‌পরে লোক ও গাড়ি এসেছিল।’‌ শনিবার রাতে অবশ্য গাড়ি পাঠান দেবাশিস দত্ত। এদিন সে প্রসঙ্গে ফুটবল সচিব স্বপন ব্যানার্জির বক্তব্য, ‘‌ইউতার এজেন্ট আমাকে বলেনি কখন ও আসছে। তাতেই এই বিভ্রান্তি।’‌ ফুটবল সচিবের মতে, কোচ শঙ্করলালের সঙ্গে কথা বলে ইউতার সই করিয়ে রাখবেন। মহমেডান ম্যাচে খেলানোর লক্ষ্যে। কোচ শঙ্করলালও চান সইটা করা থাক। এদিকে, আট বছর পর কলকাতা লিগ জয়ের সামনে মোহনবাগান। এটা নিয়ে বেশ রোমাঞ্চিত ইউতা। বলেন,‌ ‘‌জাপানে থাকতে নিয়মিত কলকাতা লিগে মোহনবাগানের ম্যাচ অনলাইনে দেখেছেন। দল বেশ ভাল খেলেছে প্রতি ম্যাচে। এবার চ্যাম্পিয়ন হলে আরও ভাল লাগবে।’ এদিন সকালে সতীর্থ ফুটবলারদের সঙ্গে সাত–‌ আট পাক দৌড়ে বসে পড়েন ইউতা। পরে প্রচারমাধ্যমের মুখোমুখি হলে তাঁর কাছে জানতে চাওয়া হয়, এবার সনি নর্ডি না খেললে মিস করবেন কি?‌ ইউতার জবাব, ‘‌শুধু সনি নয়, যাদের সঙ্গে আগে খেলেছি, তাদের সবাইকে মিস করব।’‌ মোহনবাগানের বর্তমান দল নিয়ে ইউতার প্রতিক্রিয়া, ‘‌বেশ ভাল দল। হেনরি, ডিকা, কিংসলে ছাড়াও দলের নবীন অথচ প্রতিভাবান ফুটবলাররা কলকাতা লিগে বেশ ভাল খেলছে। আমি ওদের খেলা দেখেছি। যারা নবীন বা নতুন, তাদের নিজের অভিজ্ঞতা দিয়ে সাহায্য করব।’‌ ইস্টবেঙ্গলের বিশ্বকাপার ডিফেন্ডার, নতুন বিদেশি ফুটবলার ও কোচ আসার খবরে বিচলিত নন ইউতা। বলেন, ‘‌আমি পরোয়া করি না অন্য দলে কে আছে। আমি শুধু নিজের দল নিয়েই ভাবি। আত্মবিশ্বাসী।’‌ গত মরশুমে আই লিগ ও সুপার কাপ হাতছাড়া হওয়ার আক্ষেপ আছে। এবার ট্রফি জিততে মরিয়া ইউতা। রাশিয়া বিশ্বকাপে বেলজিয়ামের বিরুদ্ধে ২ গোলে এগিয়ে গিয়েও জাপানের হারটা ভুলতে পারেননি। তবে ইউ এস ওপেনে নাওমি ওসাকা চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় খুব খুশি। বললেন, ওসাকা দেশের গর্ব। ‌‌‌

আবার পাশে ইউতা। আড্ডায় ডিকা। ছবি:‌ রাজকুমার মণ্ডল
 

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top