স্নেহাশিস গাঙ্গুলি: সেমিফাইনালে ভারতের টিম কম্পোজিশন একদম ঠিক হয়নি। এই দলে দীনেশ কার্তিকের খেলার কোনও জায়গাই নেই। আসলে বিশ্বকাপে দীনেশকে নেওয়া যে ঠিক, এটা প্রমাণ করতেই টিম ম্যানেজমেন্ট ওকে কয়েকটা ম্যাচে জবরদস্তি খেলিয়েছে। 
নিউজিল্যান্ড এই বিশ্বকাপে মোটেই ভাল ছন্দে ছিল না। আর ২৪০ রান ভারতের কাছে কোনও বড় টার্গেটও নয়। তবে সেমিফাইনালে দীনেশ কার্তিক খেলায় আর মহম্মদ সামি বাদ যাওয়ায় অবাক হয়েছি। বুধবার পাঁচ বোলারে খেলেছে ভারত। ‌লাকি যে নিউজিল্যান্ড কম রান করেছে। বড় রান করলে একজন বোলারের অভাব বুঝত ভারত। তর্কের খাতিরে মানলাম, পাঁচ বোলারে খেলতেই পারে। তা হলে কেদার যাদবের মতো প্লেয়ার, যার ওয়ান ডে রেকর্ড এত ভাল, তাকে খেলালাম না কেন?‌‌ ছয়ে কেদার যাদব স্পেশালাইজ। ভাল ব্যাট করে। দরকারে পাঁচ, ছয় ওভার বল করতে পারে। রান আটকায়। তাঁকে না খেলিয়ে দীনেশ কার্তিক!‌ 
৫ রানে ৩ উইকেট পড়ার পর চারে নেমে ঋষভ রান করার চেষ্টা করছিল। সেখানে পাঁচে কার্তিক!‌ কেন?‌ মহেন্দ্র সিং ধোনির মতো ব্যাটসম্যান থাকতে তাকে নামালাম না!‌ কয়েকটা ম্যাচে হার্দিককে পাঁচে খেলানো হয়েছে ওর স্ট্রাইক রেটের জন্য। বুধবার তো স্ট্রাইক রেটের দরকার ছিল না। ছিল স্ট্রাগলের জায়গা। ওই জায়গা থেকে বের করতে পারত ধোনি। কার্তিক কোনও মতেই ধোনি নয়। কেরিয়ারের শেষে এসে কার্তিক ওই জায়গা থেকে দলকে উদ্ধার করবে, বিশ্বকাপ জেতাবে— এটা যদি রবি শাস্ত্রী বা বিরাট কোহলি ভেবে থাকে, তা হলে তাদের বোধবুদ্ধি নিয়ে ভাবনাচিন্তা করা উচিত। ভাল প্লেয়ার হলেই ভাল বোধবুদ্ধি হয় এটা মানি না। 
অনেকগুলো ভুল বুধবার ম্যাঞ্চেস্টারে করেছে ভারত। একটা বাজে দিন রোহিত, বিরাট বা রাহুলের হতেই পারে। সেখানে ধোনিকে সাতে নামাবে!‌ কেন?‌ এর জবাব কি ভারতবাসীকে দিতে পারবে রবি শাস্ত্রী?‌ 
ঋষভ আউট হওয়ার পর দেখলাম বিরাট উত্তেজিত। স্বাভাবিক। দায়িত্বজ্ঞানহীন শট খেলার জন্য ঋষভকে শাস্তি দেওয়া উচিত। দরকারে তিন–চারটে একদিনের ম্যাচে বাদ দেওয়া হোক। বয়স কম, যুক্তি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে চলে না। ও অসাধারণ ক্রিকেটার। তবে পরিণত হতে হবে।
বিশ্বকাপের শুরুতে জাদেজাকে না খেলানো টিম ম্যানেজমেন্টের ভুল। ব্যাটে–‌বলে তো বটেই, জাদেজা অসাধারণ ফিল্ডার। উইকেট না পেলেও ইকনমিক রেট ভাল। ভাবনাচিন্তার এই ধারা হলে কোচ বা অধিনায়ককে বদলানো দরকার। ব্যক্তিগত মত, কোচ হিসেবে অনিল কুম্বলেকে ফিরিয়ে আনা হোক। আর অধিনায়ক করা হোক রোহিতকে। বুধবার টিম ম্যানেজমেন্টের হঠকারিতা একদম মেনে নেওয়া যাচ্ছে না। 
ধোনির রানিং বিটুইন দ্য উইকেট অসাধারণ। ও বলেই দ্বিতীয় রানের জন্য চেষ্টা করেছিল। খারাপ দিন। ব্যাড লাক। 
ধোনির অনুপস্থিতিতে ভারতের মিডল অর্ডারে একটা বিরাট ফাঁক তৈরি হবে। তবে এটা সাময়িক সমস্যা। দেশে প্রতিভার অভাব নেই। কিন্তু ভারতীয় দলের মূল সমস্যা হল টিম কম্পোজিশন। 
শেষে বলব, রোহিত শর্মা এখন বিশ্ব ক্রিকেটের অন্যতম সেরা। ব্যক্তিগতভাবে চাই, ও যখন কেরিয়ার শেষ করবে যেন ১০০টা টেস্ট খেলে। এত ভাল প্লেয়ার কেন যে এত কম টেস্ট খেলেছে, সেটাই বড় প্রশ্ন। ‌‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top