আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ হায়দরাবাদের পর ওয়াংখেড়ে। ফের বিরাট ঝড়। বুধবার মুম্বইয়ে সিরিজের শেষ টি২০ ম্যাচে ২৯ বলে ৭০ রানের অপরাজিত ইনিংস খেললেন বিরাট। ইনিংয়ে রয়েছে চারটি চার ও সাতটি ছয়। বলগুলো শুধু বাইন্ডারির বাইরেই তিনি পাঠাননি। বরং ক্যারিবিয়ানদের আগ্রাসনের পাল্টা উপহার দিলেন আগ্রাসনই। প্রতিটা বিগ হিট করার পর যেমন বুক চাপড়ালেন। অর্ধশতরানের পর ব্যাট তুলে ক্যামেরার দিকে ‘কাম অন’ বললেন। আবার ম্যাচ জেতার পরে হাত আকাশে ছুঁড়ে লাফালেনও।
সিরিজ সেরার তকমা তিনিই পেলেন। তবে বাড়তি উচ্ছ্বাস নয়। কিছুটা নির্লিপ্ত বিরাট বলে দিলেন, ‘‌ম্যাচের আগে আমরা যা প্ল্যান করেছিলাম সেটা কার্যকরী হয়েছে দেখে ভাল লাগছে। আমি ছন্দে ছিলাম। লোকেশকে (রাহুল) বলেছিলাম ব্যাট করে যেতে হবে।’‌ 
দু’বছর আগে ১১ ডিসেম্বর অনুষ্কা শর্মাকে বিয়ে করেছিলেন বিরাট। আর দ্বিতীয় বিবাহবার্ষিকীতে এমন একটা ইনিংস খেলার পিছনে অনুপ্রেরণা যে তাঁর স্ত্রী, তা মানছেন ভারত অধিনায়ক। নিজের ক্রিকেটীয় সত্ত্বা কয়েক মিনিটের জন্য দূরে রেখে যিনি বললেন, ‘এই ইনিংসটা আমার কাছে চিরজীবন খুব স্পেশ্যাল হয়ে থাকবে। আজ আমার দ্বিতীয় বিবাহবার্ষিকী। আর সেই দিনে এমন একটা স্পেশ্যাল ইনিংস আমার স্ত্রীকে দেওয়া আদর্শ উপহার।’
পরিসংখ্যান বলছে টি ২০ ক্রিকেটে প্রথমে ব্যাট করে ভারত অত বেশি সফল নয়। বুধবার অবশ্য ছবিটা ছিল উল্টো। টস হেরে প্রথমেই ব্যাট করল ভারত। দিনের শেষে ছিনিয়ে নিল জয়। বিরাট বললেন, ‘প্রথমে ব্যােট করে জিতেছি ভেবে ভাল লাগছে। আমি এমন একজন ব্যাটসম্যান যে প্রতিটা ফরম্যাটেই দলের জন্য সাফল্য আনতে চাই। তবে রোহিত (শর্মা) আর লোকেশ এত ভাল শুরুটা করেছিল বলেই আমাদের সুবিধা হয়েছে।’ বিরাটের কথাতে পরিষ্কার এই জয়ের পিছনে কারিগর তিনি একা নন। বরং লোকেশ রাহুল ও রোহিত শর্মারও তাতে সমান অবদান। রোহিত বললেন, ‘পিচ দেখে মনে হয়েছিল আজ বড় রান ঠিক উঠবেই। আর প্রথম ন’ওভারে ১০০ তোলার পর বড় রানে পৌঁছতেই হত। ২৪০ ডিফেন্ড করার পক্ষে যথেষ্ট। আমাদের আজ প্ল্যানটাই ছিল যে ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলতে হবে। আর সেটাই আমরা করেছি। ওয়াংখেড়ের পিচ এমনিতেই ব্যাটিংয়ের জন্য আদর্শ।’‌ 

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top