মুনাল চট্টোপাধ্যায়: রোজই কচি‌কাঁচাদের ফোন পাচ্ছেন রবি চ্যাটার্জি। ‘‌জেঠু, এবার সামার কোচিং ক্যাম্প হবে না?‌ আমরা খেলতে যাব না?‌ বসে থাকতে আমাদের যে আর ভাল লাগছে না।’‌ ফোনগুলো পেয়ে মনটা খুব খারাপ টেবিল টেনিস অন্তঃপ্রাণ রবি চ্যাটার্জির। করোনা ভাইরাসের প্রকোপে লকডাউন। তার জেরে সামার টেবিল টেনিস কোচিং ক্যাম্প বন্ধ রাখতে বাধ্য হয়েছেন বিটিটিএ–র অন্যতম কর্তা বর্ষীয়ান রবি চ্যাটার্জি। আক্ষেপের সুরে বললেল, ‘‌প্রতি বছর ১৫ মে থেকে ১৪ জুন সামার কোচিং ক্যাম্প হয়। টেবিল টেনিস র‌্যাকেট হাতে ক্ষুদে শিক্ষার্থীর দল মেতে থাকে খেলার আনন্দে। ৩৪ বছর ধরে চলে আসছিল এটা। এবারই প্রথম করা গেল না করোনা সংক্রমণ এড়াতে।’‌
বিটিটিএ–র ব্যানারে ১৯৮৬ সালে শুরু হয়েছিল সামার কোচিং ক্যাম্প। ৮–‌১২ বছর বয়সের ৬০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে। রবি চ্যাটার্জি জানালেন, ‘‌এই সামার কোচিং ক্যাম্পের প্রথম ব্যাচের ফসল কিশলয় বসাক, অনিন্দিতা চক্রবর্তী। তারপর ৩৪ বছরে কত যে সফল প্রতিযোগী বেরিয়েছে তা গুনে শেষ করা যাবে না। এর সাফল্য দেখে ২০১২ থেকে ৪–৬ বছর বয়সের মন্টেসরি কোচিং ক্যাম্প চালু করি। সেখানেও উপচে–পড়া ভিড়। রাজ্য, জাতীয় ও এশিয়ান হোপ চ্যাম্পিয়ন সায়নী পান্ডা এই ক্যাম্পের আবিষ্কার। প্রথমে ক্ষুদিরাম, পরে ভবানীপুর ব্যায়াম সঙ্ঘ, বালিগঞ্জ ইনস্টিটিউটে ক্যাম্প হয়েছে। সব মিলিয়ে একটা উৎসবের মেজাজ থাকে ক্যাম্পে। শেষের দিন সার্টিফিকেট হাতে পাওয়ার খুশির মাঝে কচি মুখগুলোয় দশমীর একটা বিষাদ লেগে লাগত। শুরুর দিকের একটা কথা বলি, কলকাতার শিক্ষার্থীরা তো ছিলই, হাওড়া, কোন্ননগর, শ্রীরামপুর, চুঁচুড়া, চন্দননগর, হুগলি থেকে যারা আসত, তারা প্রচণ্ড উৎসাহী ছিল ক্ষুদিরামে ক্যাম্পে যোগ দিতে। হাওড়া থেকে লঞ্চ ধরে বাবুঘাটে নেমেই তারা বাবা–‌মায়ের হাত ছাড়িয়ে বড় রাস্তা পার হত দৌড়ে। শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা ভেবে তৎকালীন পুলিশ কমিশনার ক্যাম্প চলাকালীন বিকেলে দু’‌ঘণ্টা বাবুঘাটের সামনে বড় রাস্তায় পুলিশ পোস্টিংয়ে ব্যবস্থা করেছিলেন। এবার ক্যাম্প না হওয়ায় সকলেই খুব মনমরা।‌ বারবার বলছে, জেঠু ক্যাম্পটা করো। আমরা বাবার সাইকেলে চেপে চলে আসব। ওরা আবদার করলেও সেটা রাখা সম্ভব নয়।’‌ 
ক্যাম্পটা কি পরে করা সম্ভব?‌ রবি চ্যাটার্জি বললেন, ‘খেলাধুলার উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি না হলে একসঙ্গে এত খেলোয়াড়ের জমায়েতের ঝুঁকি তো নেওয়া যাবে না। তবে বাচ্চারা বারবার জানতে চাইছে, ক্যাম্পটা পরে কবে হতে পারে?‌ ইচ্ছে আছে ডিসেম্বরে করার। দেখা যাক।’‌ ক্যাম্পের স্পনসর জানিয়েছে, যখনই হোক, ওরা সঙ্গে আছে। ‌‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top