দেবাশিস দত্ত
মন্থর ব্যাটিং করছেন?‌ অস্বীকার করা যাবে না। চেন্নাই শিবিরের অন্দরমহল সেটা করছেও না। তাদের কোনও অভিযোগও নেই মহেন্দ্র সিং ধোনির বিরুদ্ধে। তর্কের খাতিরে যদি ধরে নেওয়া হয়, চেন্নাই সুপার কিংস আইপিএলের বাকি ম্যাচগুলোতে খুব খারাপ খেলবে, তবুও সিএসকে শিবির ধোনিকে একেবারেই আসামির কাঠগড়ায় দাঁড় করাবেন না। এমনকি, ২০২১–‌এর আইপিএলে চেন্নাইকে নেতৃত্ব দেবেন ‘‌থালা’‌ ধোনিই।
দল যদি প্লে–অফে না যেতে পারে?‌
এসব ভাবনা চেন্নাই শিবিরে আপাতত একদমই নেই। কর্ণধার এন শ্রীনিবাসন ঘনিষ্ঠ মহলে বলে চলেছেন যে, তিনি প্রবলভাবে আশা করছেন, খোঁড়াতে খোঁড়াতে হলেও দল ঠিক শেষ চারে পৌঁছে যাবে। এ ব্যাপারে ফ্র‌্যাঞ্চাইজির শীর্ষস্থানীয় কর্তারা ধোনির ওপরই আস্থা রাখছেন। চারদিকে যখন ফর্মে না থাকা ধোনির সমালোচনা করা হচ্ছে, তখন তাঁরা ধোনির মধ্যে যথেষ্ট ইতিবাচক ভূমিকা দেখতে পাচ্ছেন। 
উদাহরণ হিসেবে বলা যেতে পারে হেরে যাওয়া রাজস্থান রয়্যালসের বিরুদ্ধে ম্যাচ। যেখানে তিনি শেষ মুহূর্তে, হেরে যাওয়ার ভ্রূকুটি থাকা সত্ত্বেও পর পর ৩টি ৬ মেরেছেন। ম্যাচ হেরে যাচ্ছেন, তবু মাথায় রেখেছিলেন যেন বড় ব্যবধানে হারতে না হয়। নেট রান রেটের অঙ্কে শেষ পর্যন্ত যেন পিছিয়ে না পড়তে হয়। এসব অন্দর কি বাত। সাধারণ চোখে এমন সূক্ষ্ম ব্যাপারগুলো ধরা দেয় না। কিন্তু, অভিজ্ঞ কর্তারা এসব খেয়াল রেখে ধোনির খাতায় নিঃশব্দে নম্বর বাড়িয়ে যান।
কাল, শুক্রবার সিএসকে–‌র পরের খেলা সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে। ওই ম্যাচে যদি একটি ৬ মারতে পারেন, তাহলে, টি–‌২০ ক্রিকেটে ধোনির ৬–‌এর সংখ্যা পৌঁছে যাবে ৩০০–‌য়। যেমন ছন্দে নেই দল, তেমন ছন্দে নেই স্বয়ং অধিনায়ক। তাই, গত ৫ দিনে ব্যাটিংয়ের দিকে নজর দিয়েছিলেন তিনি এবং অবশ্যই দলের অন্য সদস্যরা। ওঁরা ধরে নিয়েছেন, অম্বাতি রায়ডু সুস্থ হয়ে ম্যাচে ফিরবেন। সম্ভাবনা?‌ ডন ব্র‌্যাডম্যানের ব্যাটিং গড়ের মতো। ৯৯.‌৯৪ শতাংশ।‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top