মুনাল চট্টোপাধ্যায়
মোহনবাগানের অশ্বমেধের ঘোড়ার বিজয় দৌড় অব্যাহত। ডার্বি জেতার আত্মবিশ্বাস নিয়ে বৃহস্পতিবার ইম্ফলে নেরোকাকে ৩–‌‌০ ব্যবধানে উড়িয়ে দিল সবুজ–‌মেরুন ব্রিগেড। ৯ ম্যাচে ২০ পয়েন্ট নিয়ে আই লিগ টেবিলের শীর্ষে। 
সেনেগালের স্ট্রাইকার বাবা দিওয়ারা ম্যাচের সেরা হলেও নেরোকা–বধের আসল কান্ডারি মণিপুরের নংডোম্বা নাওরেম। প্রথম গোল করার পাশাপাশি বাবার গোলের পিছনে অবদান রয়েছে। যতক্ষণ মাঠে ছিলেন, তাঁর স্কিল ও পরিণত ফুটবলের কাছে নাস্তানাবুদ হল নেরোকা। ডার্বির দিনে নাওরেমের দক্ষতার প্রমাণ পেয়েছিলেন ফুটবলপ্রেমীরা। যেভাবে ফাঁকা জায়গা ব্যবহার করে, পজিশন নেন, পাস বাড়ান, তা দেখার মতো। নেরোকা ম্যাচেও সেই মুনশিয়ানা দেখা গেল। আক্রমণভাগে জোসেবা বেইতিয়া, ফ্রান গঞ্জালেস, বাবার সঙ্গে নাওরেমের বোঝাপড়া ও পাসিং ফুটবলের জোরে ইম্ফলে জিতেছে মোহনবাগান। নেরোকা গোলকিপার মারভিন ফিলিপস অন্তত চারটে ভাল সেভ করেছেন। 
২৭ মিনিটে নাওরেমের প্রথম গোল। প্রতিপক্ষ বক্সের মাথায় বল পেয়ে নাওরেম বাড়ান সামনে জোসেবাকে। তিনি কোনাকুনি পাস দেন বাঁদিকে দাঁড়ানো ধনচন্দ্রকে। সেই বল ধরে গোললাইন বরাবর পৌঁছে ধনচন্দ্র ক্রস বাড়ালে মারভিন তা চাপড়ে বার করতে চান। বল নাওরেমের কাছে এলে তিনি বাঁ পায়ে তা গোলে পাঠান। 
৫৪ মিনিটে নাওরেমের সেন্টারে হেডে বুদ্ধিদীপ্ত গোল বাবার। দ্বিতীয় গোল বাগান জার্সিতে। এদিন সহজ সুযোগ নষ্ট না করলে বাবা হ্যাটট্রিক করে ফেলতেন। ম্যাচের সেরা পুরস্কার উপহার দেন স্ত্রী–কে। বলেন, ‘স্ট্রাইকারের কাছে গোল পাওয়াটা সবসময় খুশির। তবে দলের জয়টা আরও বড় প্রাপ্তি।’ ভিকুনা সুকৌশলে শুভ ঘোষ ও কোমরন তুরসুনভকে অল্প সময় খেলিয়ে দলের অন্যদের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার সুযোগ করে দিচ্ছেন। এদিন ড্যানিয়েল উরুর পেশিতে হালকা চোট পাওয়ায় তুরসুনভকে নামান ভিকুনা। ৪–‌‌৪–‌‌২ ছকে খেলা শুরু করলেও পরে সুহেরকে তুলে ব্রিটোকে নামিয়ে ৩–‌‌৫–‌‌২ ছকে চলে গিয়ে নেরোকাকে আরও কোণঠাসা করে দেন। সেই ঝাঁঝালো আক্রমণের ফসল ৯৩ মিনিটে তুরসুনভের গোল। সাহিল ও ব্রিটোর পা ঘুরে আসা থ্রু ধরে ঠান্ডা মাথায় জালে পাঠান তাজিকিস্তান উইঙ্গার। 
জিতে ভিকুনা বলেন, ‘গোটা ম্যাচটাই আমার ফুটবলাররা নিয়ন্ত্রণ করেছে। পরপর ম্যাচ খেলার ধকল ছিল। তা সত্ত্বেও ৯০ মিনিট আধিপত্য নিয়ে যে ফুটবল খেলেছে ছেলেরা, তা প্রশংসনীয়।’ জয়ের আনন্দের মাঝে চিন্তা সাইরাসের চোট। 
মোহনবাগান:‌ শঙ্কর, ধনচন্দ্র, ড্যানিয়েল (‌তুরসুনভ)‌, মোরান্তে, আশুতোষ, নাওরেম (শুভ)‌‌, সাহিল, গঞ্জালেস, জোসেবা, সুহের (‌ব্রিটো)‌, বাবা। ‌‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top