আজকালের প্রতিবেদন: গত দিন অনুশীলনে নামার আগে ফুটবলারদের কাস্টমস ম্যাচের আগে সিরিয়াস থাকার জন্য বেশ কিছু কথা বলেছিলেন মোহনবাগান কোচ শঙ্করলাল। এমনকি পরে প্রচারমাধ্যমকে বলেন, ‘‌ইস্টবেঙ্গলের পয়েন্ট নষ্টে সুবিধা হলেও, সেই সুবিধা কাজে না লাগালে এতদিনের পরিশ্রম বৃথা। এর আগে হাতের সামনে থেকে ট্রফি ফসকে যেতে দেখেছি। তাই যতক্ষণ না ট্রফি ঘরে আসছে, ততক্ষণ কোনও হালকা ভাব চলবে না।’‌ তবে বাগান কোচ সম্ভবত এটাও মাথায় রেখেছেন, অতিরিক্ত সিরিয়াসনেস যেন বাড়তি চাপ তৈরি না করে দলে। আর তাই, শনিবার সকালে প্রাথমিক স্পিড ট্রেনিংয়ের পর ফুটবলারদের হালকা রাখতে ফুট ক্রিকেট খেলালেন। এই ফান গেমে ফুটবলারদের শারীরিক কসরতও হল, আবার একঘেয়েমি অনুশীলন করার পদ্ধতিতে সরে এসে মানসিক ভাবে চাঙ্গা হওয়া গেল। কোচ শঙ্করলাল নিজে আম্পায়ারের ভূমিকায় থেকে দু’‌দলে ভাগ করে ফুট ক্রিকেট খেলালেন। জিতল গোলকিপার শিলটনের নেতৃত্বে দল। দলের ক্যামেরুন স্ট্রাইকার ডিপান্ডা ডিকা শুরুতে অনুশীলন করলেও, পরে ফুট ক্রিকেট খেলেননি। মাঠের ধারে বরফ বেঁধে বসেছিলেন পায়ের হালকা চোটে আরাম দিতে। এদিকে, ফুটবলারদের মাইনে দেওয়ার সময় এসে যাচ্ছে। হিসেব মতো ১৫ সেপ্টেম্বর আর এক মাসের মাইনে পাওয়ার কথা ফুটবলারদের। কিন্তু সেই টাকা কোথা থেকে আসবে, সেটা জানা নেই সচিব অঞ্জন মিত্রের। ইনভেস্টার স্ট্রিমকাস্টের সঙ্গে রবিবার মৌ সই করতে চেয়েছিলেন তিনি। ১১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে অগ্রিম নিয়ে ফুটবলারদের ১৫ তরিখের মধ্যে মাইনে দেওয়ার ভাবনা ছিল সচিবের। কিন্তু টুটু বসু–‌সহ বোর্ডের বাকি ডিরেক্টররা ডেলয়েটকে দিয়ে স্ট্রিমকাস্টের ব্যাপারে খোঁজখবর নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়ায়, স্ট্রিমকাস্টের সঙ্গে চুক্তি এখন বিশবাঁও জলে। এতে সচিব অঞ্জন চিন্তিত। বলেন, ‘‌ডেলয়েটের সঙ্গে কথা বলছি স্ট্রিমকাস্টের ব্যাপারে ওদের অনুসন্ধান প্রক্রিয়া চালাতে। কিন্তু ব্যাপারটা সময়সাপেক্ষ। ওদের কানেও তো যাবে এসব। এতে ওরা বিরক্ত হয়ে সরে দাঁড়ালে ক্লাবের ক্ষতি। ১৮ সেপ্টেম্বর কলকাতা লিগে মোহনবাগানের শেষ ম্যাচ রয়েছে মহমেডানের বিরুদ্ধে। অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ খেলা। তার আগে মাইনে নিয়ে জটিলতা তৈরি হলে, ফুটবলারদের ফোকাস নষ্ট হতে পারে। এটা সবাইকে মাথায় রাখতে হবে।’‌ এ নিয়ে বোর্ডের অন্যতম ডিরেক্টর সৃঞ্জয় বসুর প্রতিক্রিয়া, ‘‌ফুটবলারদের কোনওরকম অসুবিধা হোক এটা চাই না। তবে ১০ বছরের জন্য কোনও ইনভেস্টারের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধার আগে সবদিক ভাল করে খতিয়ে দেখা উচিত। মিটিংয়ের সর্বসম্মতিক্রমে নেওয়া সিদ্ধান্ত এটা। তাই ফুটবলারদের মাইনে দেওয়ার ব্যাপারটা অবশ্যই মাথায় আছে। সামান্য দেরি হতে পারে খোঁজখবর নিয়ে সিদ্ধান্তে আসতে। তবে আমি ফুটবলারদের মানসিকতা বুঝি। ৮ বছর বাদে লিগ জয়ের মুহূর্তে দাঁড়িয়ে মাঠে এতটুকু শিথিলতা দেখাবে না ফুটবলাররা। এর গুরুত্ব ওরা বোঝে।’‌  ‌‌

 

খুদে ভক্তকে নিয়ে পুরনো চোটের জায়গায় বরফ ঘসছেন ‌ডিকা। ছবি:‌ রাজকুমার মণ্ডল

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top