অগ্নি পান্ডে: নাইট অধিনায়ক দীনেশ কার্তিকের কী এমন প্রয়োজন হল যে, তাঁেক নতুনভাবে তৈরি হতে দু’‌দিনের জন্য মুম্বইয়ে কাটাতে হল? নাইট শিবির থেকে যতই বলা হয়ে থাকুক না কেন যে, মুম্বইয়ের নাইট অ্যাকাডেমিতে দীনেশ কার্তিকরা অনুশীলন করতে গেছেন, সেটা কিন্তু নয়। তাহলে কেন মুম্বই যাওয়া? হ্যাঁ, নাইট কর্ণধার শাহরুখ খানের সঙ্গে কথা বলার জন্যই যাওয়া। যদিও এর কোনও সরকারি স্বীকৃতি নাইট শিবির থেকে দেওয়া হয়নি। কিন্তু মুম্বইয়ের সূত্র থেকে জানা গেছে, কিং খান স্বয়ং ডেকে পাঠিয়েছেন তাঁর দলের অধিনায়ক–সহ বেশ কয়েকজন সিনিয়র ক্রিকেটারকে।
নেতৃত্ব কি চলে যাচ্ছে দীনেশ কার্তিকের? মঙ্গলবার বেশি রাত পর্যন্ত খবর, তেমন কিছু সম্ভবত এবারের আইপিএলে ঘটছে না। কার্তিকেই ভরসা রাখতে চায় নাইট ম্যানেজমেন্ট। কিং খান নেতাবদলের পক্ষে নন। বিশেষত এখনই। সে জন্য হয়ত বেঁচে যেতে পারে দীনেশ কার্তিকের অধিনায়কত্ব। তবে, নাইট ম্যানেজমেন্ট যে পর পর পাঁচটি ম্যাচ হেরে যাওয়ায় অসন্তুষ্ট, সেটা ঠারেঠোরে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে ক্রিকেটারদের।
নাইট শিবির থেকে জানা গেছে, রবিবার হায়দরাবাদে ম্যাচ হেরে যাওয়ার পরই চেন্নাইয়ে নিজের বাড়িতে ফিরে যান দীনেশ কার্তিক। তার পর সোমবার চেন্নাই থেকে মুম্বইয়ে উড়ে যান নাইট অধিনায়ক। বুধবার কার্তিক দলবল নিয়ে (‌‌যে সব ক্রিকেটার মুম্বই গেছেন) কলকাতায় ফিরবেন। তার পরে নামবেন ইডেনে অনুশীলনে। বৃহস্পতিবার রাজস্থান রয়্যালসের বিরুদ্ধে ম্যাচের প্রস্তুতি হিসেবে।
মঙ্গলবার নাইট কোচ জাক কালিস পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন, ‘না, নেতৃত্ব বদলের কোনও আলোচনা হয়নি। কোনও প্রশ্নও ওঠেনি।’ তবে কালিস স্বীকার করে নিয়েছেন, পর পর পাঁচটি ম্যাচ হেরে যাওয়ার পর দলের মধ্যে হতাশা তৈরি হয়েছে। ‘ছেলেরা সবাই বিধ্বস্ত। ড্রেসিংরুমে হতাশা রয়েছে। সে জন্য আবার তরতাজা হওয়ার জন্যে মুম্বইয়ে গেছে। সেখানে দু’‌দিন কাটিয়ে আবার ফ্রেশ হয়ে কলকাতায় ফিরবে ছেলেরা।’ এখনও কি প্লে–অফে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে? কালিস মনে করিয়ে দিতে চাইলেন ২০১৪ সালের অভিজ্ঞতার কথা। ‘আমরা সেবার প্রথমে ৫টা ম্যাচ হেরে তার পর টানা ৯টা ম্যাচ জিতে ফাইনালে গিয়েছিলাম। এবারও সেটা সম্ভব। আমি আশাবাদী, ছেলেরা নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে ঘুরে দাঁড়াতে পারবে। আসলে এমন পরিস্থিতি তৈরি হত না। আমরা যে সব সুযোগ পেয়েছিলাম, সেগুলো কাজে লাগাতে পািরনি বলেই এই সমস্যা।’
আন্দ্রে রাসেলের ব্যাটিং অর্ডার নিয়ে মুখ খুলেছেন নাইট রাইডার্স কোচ জাক কালিস। তিনি বলছেন, ‘আসলে আগে থেকেই ঠিক ছিল রাসেলকে ব্যাটিং অর্ডারে ওপরে নিয়ে যাওয়া হবে না। তবে আমরা পরের ম্যাচগুলোতে বেশ কিছু পরিবর্তনের কথা ভেবে রেখেছি।’
হ্যাঁ, দলের এই হালের জন্য নাইট কোচ দায়ী করছেন বোলিং বিভাগকে। ‘আমরা ভাল বোলিং করতে পারছি না। এটা হতাশাজনক ব্যাপার। গত ১০টা ম্যাচে আমাদের বোলাররা ২০–২১টা উইকেট নিয়েছে। আরও বেশি উইকেট তোলা উচিত ছিল। যেটা আমাদের খুব চাপে ফেলে দিয়েছে। এই জন্য আমাদের বোলিং বিভাগ বেশ চাপে রয়েছে।’

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top