আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ করোনা আবহেই কলকাতাবাসী পুজোর মুডে ঢুকে পড়েছে। তবে উৎসবের মরশুমের এই দিনটি কলকাতা নাইট রাইডার্স ভক্তদের কাছে সুখকর হল না। কারণ আবুধাবিতে অনুষ্ঠিত আইপিএলে বিরাট কোহলির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের বিরুদ্ধে লজ্জার হার। মহম্মদ সিরাজ–চাহাল–সুন্দরদের দুরন্ত বোলিংয়ের সামনে একসঙ্গে কেকেআরের গোটা ব্যাটিং লাইন–আপ ভেঙে পড়ল। 
লজ্জার হার কলকাতা নাইট রাইডার্সের। বুধবার রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর ৩৯ বল বাকি থাকতে ৮ উইকেটে হারাল কলকাতাকে। পয়েন্ট তালিকায় উঠে এল দু’নম্বরে। ১০ ম্যাচে বিরাট কোহলির দলের পয়েন্ট ১৪। আর ১০ ম্যাচে ১০ পয়েন্টে চারেই থাকল ইওন মর্গ্যানের দল।
টস জিতে ব্যাট করতে নেমে কলকাতা নাইট রাইডার্স ৮ উইকেট হারিয়ে তুলেছিল মাত্র ৮৪। জবাবে ১৩.৩ ওভারে জয়ের পৌঁছে গেল ব্যাঙ্গালোর (৮৫–২)। 
২০১৭ সালে ইডেনে ৪৯ রানে অলআউট হয়েছিল বিরাটের আরসিবি। এতদিন দু’‌দলের ম্যাচ থাকলে এই নিয়েই আরসিবি ফ্যানদের কটাক্ষ করতেন নাইট সমর্থকরা। কিন্তু এদিন কার্তিকদের ব্যাটিং ব্যর্থতা বিরাটদের সেই লজ্জার রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলার বা ভেঙে দেওয়ার আশঙ্কা তৈরি করেছিল। শেষপর্যন্ত তা না হলেও ১০০ রানও করতে পারেনি নাইটরা।
এদিন টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং নেন মর্গ্যান। কিন্তু শুরুতেই রেকর্ড গড়ে কেকেআরকে জোড়া ধাক্কা দেন এদিনই দলে সুযোগ পাওয়া মহম্মদ সিরাজ। ম্যাচের দ্বিতীয় এবং নিজের প্রথম ওভারেই মেডেন দিয়ে আউট করেন রাহুল ত্রিপাঠি এবং নীতিশ রানাকে। আইপিএলের ইতিহাসে প্রথম বোলার হিসেবে এই কৃতিত্ব অর্জন করলেন তিনি। এরপর দ্রুত ফিরে যান শুভমান গিল (‌১), টম ব্যান্টন (১০‌), দীনেশ কার্তিকরা (৪‌)। মর্গ্যান (৩০‌), কুলদীপ (‌১২)‌ এবং ফার্গুসেনর (‌১৯*‌)‌ রানের সৌজন্যে নির্ধারিত ২০ ওভারে ‌আট উইকেটের বিনিময়ে মাত্র ৮৪ রানই করতে সক্ষম হয় কেকেআর। বেঙ্গালুরুর বোলারদের মধ্যে সিরাজ তিনটি, চাহাল দু’‌টি উইকেট নেন।
জবাবে ব্যাট করতে নেমে দেবদত্ত পাডিক্কাল এবং ফিঞ্চ ভালই শুরু করেন। তবে ফিঞ্চ ১৬ রান এবং পাডিক্কাল ২৫ রানে আউট হলেও, বিরাট–গুরকিরতমান জুটি আরসিবিকে নির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রাই অতি সহজেই পৌঁছে দেয়। কেকেআরের হয়ে একমাত্র উইকেটটি নেন লকি ফার্গুসন। আইপিএলের গুরুত্বপূর্ণ সময়ে বড় ব্যবধানে এই হার কেকেআরের প্লে–অফে যাওয়ার রাস্তা আরও কঠিন করে দিল। অন্যদিকে, ২ পয়েন্ট পেয়ে শেষ চারের দিকে আরও একধাপ এগোল বিরাটের আরসিবি।

 

 

পুনশ্চ:‌ আইপিএলে নাইটদের এটি দ্বিতীয় সর্বনিম্ন স্কোর। ২০০৮ সালে মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে ৬৭ রানে থেমে গিয়েছিল কলকাতা। 

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top