আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ নিভে গেল প্রদীপ। প্রয়াত কিংবদন্তি প্রাক্তন ফুটবলার পি কে ব্যানার্জি। শুক্রবার দুপুরে এক বেসরকারি হাসপাতালে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। তাঁর মৃত্যুতে ভারতীয় ফুটবলের একটা অধ্যায়ের সমাপ্তি হল। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর। 
দীর্ঘ একমাস ধরেই হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন পি কে ব্যানার্জি। গত সোমবার বিকেল থেকে তাঁর শারীরিক অবস্থার অনেকটাই অবনতি হয়েছিল। হাসপাতালে তাঁকে দেখতে ছুটে গিয়েছিলেন ভাই প্রসূন ব্যানার্জি ও মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। পিকে–কে দেখতে গিয়েছিলেন মন্ত্রী সুজিত বসুও।
এর আগে গত ৩ মার্চ পি কে–র শারীরিক অবস্থা অত্যন্ত খারাপ হয়েছিল। কিন্তু শেষপর্যন্ত নিজেকে সামলে নিয়েছিলেন তিনি। 
মূলত ফুসফুসের সংক্রমণ নিয়েই তিনি বাইপাসের ধারে এক বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। যদিও আরও একাধিক শারীরিক সমস্যা ছিল পি কে–র। ডায়ালিসিসও চলছিল। তবে গত সোমবার বিকেল থেকে তাঁর অবস্থার ফের অবনতি হয়। ভেন্টিলেশনে রাখা হয় তাঁকে। 
হাসপাতালের তরফে সোমবার রাত নটা নাগাদ এক মেডিক্যাল বুলেটিনে বলা হয়, চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন না প্রাক্তন ফুটবলার। বর্তমানে তাঁকে পুরোপুরি ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছে। বহু অঙ্গ কাজ করছে না। কৃত্রিম ভাবে শ্বাসযন্ত্রকে কাজ করানো হচ্ছে। 
শেষ পর্যন্ত শুক্রবার দুপুরে মারা যান পি কে ব্যানার্জি। হাসপাতালের তরফে জানানো হয় নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়েই মারা গিয়েছেন তিনি। ইস্টার্ন রেলের হয়ে দাপটে খেলেছেন। ভারতীয় ফুটবল দলের হয়ে অলিম্পিক, এশিয়াডে অংশ নিয়েছেন। কোচ হিসেবে মোহনবাগান, ইস্টবেঙ্গলকে একাধিক সাফল্য এনে দিয়েছেন পি কে। তাঁর মৃত্যতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। শোকবার্তায় তিনি বলেছেন, ‘‌কিংবদন্তি ফুটবলার ও কোচ প্রদীপ কুমার ব্যানার্জি (‌পি কে ব্যানার্জি)‌–র প্রয়াণে আমি গভীর শোক প্রকাশ করছি। তিনি আজ ৮৩ বছর বয়সে কলকাতায় প্রয়াত হন। পশ্চিমবঙ্গ সরকার ২০১৩ সালে তাঁকে ‘‌বঙ্গবিভূষণ’‌ সম্মান প্রদান করে। এছাড়া তিনি অর্জুন পুরস্কার, পদ্মশ্রী, ফিফা অর্ডার অফ মেরিট, এশিয়ান গেমস স্বর্ণপদক সহ অজস্র সম্মান ও পুরস্কার পান। তাঁর প্রয়াণে ক্রীড়া জগতের অপুরণীয় ক্ষতি হল। আমি প্রয়াত পি কে ব্যানার্জির আত্মীয়, পরিজন ও অনুগামীদের আন্তরিক সমবেদনা জানাচ্ছি।’‌  

 

 

 

 

ফাইল ছবি। 

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top