আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ লগান এর গোলি–র কথা মনে আছে?‌ আমীর খান অভিনীত ছবিতে দেখা গিয়েছিল ছুটে এসে অনেকবার হাত ঘুরিয়ে তারপর বল ছাড়তেন গোলি। একেবারে অদ্ভুত বোলিং অ্যাকশন!‌ কিন্তু সে তো ছিল ছবি। এবার বাস্তবেও এরকম ছবি দেখা গেল। অনূর্ধ্ব ২৩ সিকে নাইডু ট্রফিতে। খেলা চলছিল বাংলা বনাম উত্তরপ্রদেশের। যেখানে উত্তরপ্রদেশের বাঁহাতি স্পিনার শিবা সিং ৩৬০ ডিগ্রি ঘুরে অদ্ভুত একটা ডেলিভারি করলেন। বাংলার দ্বিতীয় ইনিংসের সময় শিবা সিং বল ছাড়ার আগে ৩৬০ ডিগ্রি ঘুরে যান। শিবার ডেলিভারি কোনওমতে সামাল দেন ব্যাটসম্যান। আম্পায়ার বিনোদ সেশান সঙ্গেসঙ্গে ডেড বল ঘোষণা করেন। আম্পায়ারের বক্তব্য, এই ধরণের অদ্ভুত বোলিং অ্যাকশন ব্যাটসম্যানের ফোকাস নষ্ট করে দিতে পারে। তাছাড়া এরকম ডেলিভারি ক্রিকেট আইনেরও বিরোধী। কিন্তু আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত মানতে নারাজ ছিলেন শিবা। তাঁর সতীর্থরাও আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে অসন্তোষ প্রকাশ করেন। তাঁদের দাবি, শিবার বোলিং অ্যাকশন বেআইনি নয়। কিন্তু আম্পায়ার নিজের সিদ্ধান্তে অবিচল ছিলেন। 
পৃথ্বী শ–র নেতৃত্বে অনূর্ধ্ব ১৯ ভারতীয় দলের প্রতিনিধিত্ব করেছেন শিবা। বিশ্বকাপ জিতেছেন। সেখানে কিন্তু এরকম অদ্ভুত বোলিং অ্যাকশন দেখা যায়নি। অনেকে মনে করছেন, পরীক্ষামূলকভাবেই নতুন অ্যাকশন প্রয়োগের চেষ্টা করেছেন শিবা। যা কিনা প্রথম চেষ্টাতেই আম্পায়ারের হস্তক্ষেপে ব্যর্থ হয়ে গেল। ক্রিকেট আইনের ৪১.২ ধারায় বলা রয়েছে, কোনও বোলিং অ্যাকশনের নৈতিকতা বিচার করবেন আম্পায়াররা। পরিস্থিতি অনুযায়ী ডেড বল ডাকার সিদ্ধান্ত আম্পায়ারদের। ৪১.৯ ধারাতে বলা নিয়মও অনেকটা একইরকম। সেক্ষেত্রে আম্পায়ার দলের অধিনায়ককে ডেকে সতর্ক করবেন। পরিস্থিতি অনুযায়ী বিচার করে পাঁচ রানের পেনাল্টি দিতে পারেন। সোশ্যাল মিডিয়াতেও এই অদ্ভুত বোলিং অ্যাকশন নিয়ে প্রচুর চর্চা হয়েছে। 

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top