আজকালের প্রতিবেদন: এবারের বিশ্বকাপে তিনি নিজেই এক ‘চমক’। দুর্দান্ত ক্যাচ ধরেছেন। যা পেছনে ফেলে দেয় বেন স্টোকসের নেওয়া ক্যাচকেও। সব মিলিয়ে এবারের বিশ্বকাপে দুরন্ত প্যাকেজ ক্যরিবিয়ান ফাস্ট বোলার শেলডন কটরেল।
প্রতিটি ম্যাচেই উইকেট তুলে নিচ্ছেন বিষাক্ত ডেলিভারিেত। তার পরেই চমক। সেনাদের মতো মার্চ পাস্ট করে এগিয়ে গিয়ে কড়া স্যালুট। যা স্তম্ভিত করে দিয়েছে ক্রিকেটবিশ্বকে। না, কটরেলের আগে আর কোনও বোলারকে উইকেট পাওয়ার পর এভাবে আনন্দে মাততে দেখা যায়নি। তাই উইকেট পাওয়ার পর কটরেলের ‘সেলিব্রেশন’ ঘিরেই তুমুল আলোচনা বিলেতের আঙিনায়। যা সোমবার সাদামটনে বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে দুটি উইকেট তুলে নেওয়ার পরেও দেখা গেছে কটরেলের কাছ েথকে।
কেন তিনি এভাবে মার্চ পাস্ট করে সামনে এগিয়ে কড়া স্যালুট ঠোকেন? এর পেছনে রয়েছে সেনাবাহিনীর অতীত। ২০১০ সালে কটরেল জামাইকার ডিফেন্স ফোর্সে যোগ দিয়েছিলেন। সে সময়ে ড্রাগ–মাফিয়াদের দৌরাত্ম্যে কিংসটনে ব্যাপক গন্ডগোল হয়। টিভোলি (কিংসটনের একটি জায়গা) রীিতমতো গৃহযুদ্ধের আকার ধারণ করে। সে সময়েই কটরেল ড্রাগ–মাফিয়াদের সঙ্গে সঙ্ঘর্ষে তাঁর দুই প্রিয় সতীর্থকে হারান। তার পর থেকেই তাঁদের উদ্দেশে কটরেলের এই অভিনব সেলিব্রেশন।
কটরেল নিজে কী বলছেন?‌ শোনা যাক। ‘আমার কাছে বুলেটের থেকে বলই বেশি পছন্দ। ক্রিকেটে জীবন–মৃত্যুর খেলা নেই। যা রয়েছে সেনাবাহিনীতে। দুটো বিষয়েই নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে লড়তে হয়। কিন্তু ওই যে জীবন–মৃত্যুর ব্যাপার থেকে যায় বন্দুক, বুলেটে।’ প্রসঙ্গত, সেনাবাহিনীতে থাকার জন্য জামাইকার হয়ে এক বছর প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট খেলাও পিছিয়ে যায় কটরেলের।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top