আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ বর্ডার–গাভাসকার ট্রফিতে ৪ টেস্টে ভারতের হয়ে খেললেন ২০ জন ক্রিকেটার! এমন ঘটনা ঘটল প্রথমবার। এতজন ক্রিকেটারকে খেলানোর মূল কারণ চোট। একের পর এক ক্রিকেটার চোট পেয়ে সিরিজ থেকে ছিটকে যান, তাঁদের বদলে এই সিরিজে অভিষেক ঘটে একাধিক ক্রিকেটারের।  
ভারতীয় দলের এই সিরিজে ৪ টি টেস্টেই খেলেছেন এমন ক্রিকেটার মাত্র দু’জন। অজিঙ্কা রাহানে এবং চেতেশ্বর পুজারা। তা ছাড়া আরও ১৮ জন ক্রিকেটার ভারতের হয়ে খেলেছেন বর্ডার–গাভাসকার সিরিজে। প্রথম টেস্টের পর পিতৃত্বকালীন ছুটি নিয়ে দেশে ফিরে আসেন বিরাট কোহলি। সেই ম্যাচেই চোট পেয়েছিলেন পেসার মহম্মদ সামি। দ্বিতীয় টেস্টে অভিষেক ঘটে ব্যাটসম্যান শুভমান গিল এবং পেসার মহম্মদ সিরাজের। এছাড়াও দলে আসেন রবীন্দ্র জাদেজা এবং ঋষভ পন্থ। বসতে হয় পৃথ্বী শ এবং ঋদ্ধিমান সাহাকে। মেলবোর্নে দ্বিতীয় টেস্ট জিতে নেয় অজিঙ্কা রাহানের ভারত। কিন্তু সেই জয়ী দল সিডনিতে নামাতে পারেননি রাহানেরা। চোট পান পেসার উমেশ যাদব, তাঁর বদলে সিডনিতে তৃতীয় ম্যাচে দলে অভিষেক ঘটে নভদীপ সাইনির। ওপেনার মায়াঙ্ক আগরওয়ালের বদলে দলে আসেন রোহিত শর্মা। সিডনিতে একাধিক চোটে ভারতীয় দল জর্জরিত হয়ে যায়। ব্রিসবেনে টস অবধি অপেক্ষা করতে হয় দল ঘোষণা করার জন্য। শেষ টেস্টে চোটের জন্য বাদ পড়েন হনুমা বিহারী, রবীন্দ্র জাদেজা, রবিচন্দ্রন অশ্বিন এবং জসপ্রীত বুমরা। এমনই অবস্থা হয় ভারতীয় দলের, যে ওয়াশিংটন সুন্দর, শার্দূল ঠাকুর এবং টি নটরাজনকে প্রথম একাদশে রাখতে বাধ্য হয় তারা। চতুর্থ টেস্টে অভিষেক ঘটে ওয়াশিংটন এবং নটরাজনের। তাছাড়াও দলে আসেন শার্দূল এবং মায়াঙ্ক। 
এই সিরিজের আগে ২০১৮ সালে ইংল্যান্ড সফরে ১৭ জন ক্রিকেটার খেলেছিলেন ভারতের হয়ে। ২০১৪–১৫ সালের অস্ট্রেলিয়া সফর এবং ১৯৫৯ সালের ইংল্যান্ড সফরেও খেলেছিলেন ১৭ জন ক্রিকেটার। ১৯৬১–৬২ সালের পর এক সিরিজে ভারতীয় দলে এতজন ক্রিকেটার খেলার ঘটনা প্রথমবার।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top