সংবাদ সংস্থা, ইন্দোর: বৃহস্পতিবার থেকে ইন্দোরে শুরু হচ্ছে ভারত–বাংলাদেশ টেস্ট সিরিজ। ইন্দোর টেস্ট লাল বলে খেলা হলেও বিরাট কোহলিদের মাথায় এখন শুধু ঘুরপাক খাচ্ছে গোলাপি বল। ইন্দোরের নেটে গোলাপি বলে প্র‌্যাকটিসও শুরু করে দিয়েছেন কোহলি, পুজারা, রাহানেরা।
গোলাপি বলে কতটা স্বচ্ছন্দ বোধ করছেন ভারতীয় দলের ব্যাটসম্যানরা?‌ পুজারা, রাহানেরা তো রীতিমতো উত্তেজিত। যদিও এই প্রথম গোলাপি বলে খেলবেন না চেতেশ্বর পুজারা। দলীপ ট্রফিতে গোলাপি বলে খেলার অভিজ্ঞতা আছে ভারতীয় দলের এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানের। পুজারা বলেন, ‘‌দিন–রাতের ম্যাচ সত্যিই দারুণ ব্যাপার। এর আগে দলীপ ট্রফির ম্যাচে গোলাপি বলে খেলেছি। এবার আন্তর্জাতিক টেস্ট ম্যাচে মাঠে নামব। ব্যাপারটা দারুণ উত্তেজক হবে।’‌ দলীপ ট্রফি খেলার সময় গোলাপি বল দেখতে কোনও সমস্যা হয়নি বলে দাবি করেন পুজারা। তাঁর কথায়, ‘দিনে ও রাতে গোলাপি বলের দৃশ্যমানতা নিয়ে সেই সময় কোনও সমস্যা হয়নি। তবে সূর্যাস্তের সময় বল দেখাটা যথেষ্ট চ্যালেঞ্জের। রিস্ট স্পিনারদের সঙ্গে কথা বলে জানতে পেরেছিলাম ওদের বল গ্রিপ করতে সমস্যা হয়েছিল।’‌ 
নতুন চ্যালেঞ্জ নেওয়ার জন্য অজিঙ্কা রাহানেও বেশ উত্তেজিত। ইন্দোরে নেটে গোলাপি বলের অনুশীলনে যথেষ্টই সাবলীল ছিলেন রাহানে। তিনি বলেন, ‘‌নতুন চ্যালেঞ্জ নেওয়ার জন্য মুখিয়ে রয়েছি। গোলাপি বল কেমন আচরণ করবে ম্যাচের আগে প্র‌্যাকটিসের সময় বুঝতে পারব। তবে একটা কথা বলতে পারি, গোলাপি বলের ক্রিকেট দারুণ উত্তেজক হবে।’‌ গোলাপি বলে প্র‌্যাকটিস করার অভিজ্ঞতা রয়েছে রাহানের। কেমন সেই অভিজ্ঞতা?‌ রাহানে বলেন, ‘‌ব্যাটসম্যানের দৃষ্টিকোণ থেকে বলতে পারি, দেরিতে খেলাটাই মূল অস্ত্র। গোলাপি বল দেরিতে সুইং করে। তাই দেরিতে খেলাটাই যুক্তিযুক্ত হবে। আমার মনে হয় না মানিয়ে নিতে কোনও সমস্যা হবে।’‌ 
জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতে রাহুল দ্রাবিড়ের তত্ত্বাবধানে গোলাপি বলে অনুশীলন করার সুযোগ হয়েছে রাহানের। গোলাপি বলে খেলার ব্যাপারে দ্রাবিড়ের কাছ থেকে প্রচুর পরামর্শও পেয়েছেন। রাহানে বলেন, ‘‌জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতে অনুশীলনের সময় আমাদের ফোকাস ছিল বলের সিম ও সুইংয়ের দিকে। শরীরের কাছাকাছি খেলার দিকেও নজর দিয়েছিলাম। লাল বলের তুলনায় গোলাপি বল একটু দেরিতে শরীরের কাছাকাছি খেলতে হবে।’‌ দ্রাবিড়ের পরামর্শের ব্যাপারে রাহানে বলেন, ‘‌জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতে গোলাপি বলে দুটি সেশনে প্র‌্যাকটিস করতাম। একবার দিনের বেলায় আর একবার নৈশালোকে। গোলাপি বলে প্র‌্যাকটিস আমার কাছে দারুণ উত্তেজক ছিল। আমাদের মূল্য লক্ষ্য ছিল গোলাপি বল কেমন আচরণ করে সেটা দেখার। লাল বলের তুলনায় গোলাপি বলের সুইং অনেক বেশি। এই ব্যাপারে রাহুল দ্রাবিড়ের সঙ্গে অনেক কথাও হয়েছিল। অনেক পরামর্শ পেয়েছি। তবে এখন আমাদের মূল ফোকাস ইন্দোর টেস্ট নিয়ে।’‌ 
দলীপ ট্রফিতে খেলার সময় গোলাপি বল নিয়ে স্পিনারদের কাছ থেকে অনেক অভিযোগ এসেছিল। যদিও দলীপ ট্রফিতে গোলাপি কোকাবুরা বলে খেলা হয়েছিল। ভারত–বাংলাদেশ টেস্ট হবে এস জি বলে। জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতে অনুশীলনের সময় গোলাপি এস জি বলে স্পিনারদের সমস্যা হয়েছে বলে জানান রাহানে। তাঁর কথায়, ‘‌স্পিনারদের কাছে কাজটা বেশ কঠিন। তবে এই মুহূর্তে কোকাবুরা এবং এস জি বলের তুলনা করা সম্ভব নয়। মানসিকভাবে যদি মানিয়ে নেওয়া যায় তাহলে ভাল। কলকাতায় দুটি প্র‌্যাকটিস সেশন পাব। আশা করছি দ্রুত মানিয়ে নিতে পারব।’
কলকাতায় আসার আগেই ইন্দোরের নেটে গোলাপি বলে অনুশীলন করলেন ভারতীয় দলের ব্যাটসম্যানরা। নেটে প্রথম নেমেছিলেন কোহলি। বেশ কয়েকটি ডেলিভারিতে পরাস্ত হয়েছিলেন ভারতীয় দলের ক্যাপ্টেন। তবে বেশ কিছু দৃষ্টিনন্দন কভার ড্রাইভও দেখা গিয়েছিল কোহলির ব্যাটে। পুজারা ও রাহানেকে বেশ সতর্কতার সঙ্গে ব্যাট করতে দেখা গেছে। এই দুই ব্যাটসম্যানকে গোলাপি বলে তেমন বেগ দিতে পারেননি বোলাররা। ‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top