আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ দিয়েগো মারাদোনার মৃত্যু সংবাদ ছড়িয়ে পড়ার পর আর্জেন্টিনা জুড়ে- কান্না-শোক-আবেগে ভেসে যাওয়া দেশের সব মানুষই যেন শিশুর মতো হয়ে গিয়েছেন। যেমনটা হয়ে যেতেন মারাদোনা নিজেও।  আবেগ যার কাছে বাধা মানেনি কোনও দিন, বৃহস্পতিবার বুয়েনস আয়ার্সের প্রেসিডেন্ট প্যালেসের সামনে ছবিটা সেই ঠিক সেরকম। কিংবদন্তি মারাদোনার প্রয়াণে তিন দিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করেছে আর্জেন্টিনা সরকার।  বৃহস্পতিবার কাসা রোসাদা অর্থাৎ প্রেসিডেন্ট প্যালেসে কোভিড বিধি মেনেই চলল শ্রদ্ধাজ্ঞাপন। দিয়েগোকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে এসে কান্নায় ভেঙে পড়েন তাঁর ভক্তরা। কেউ প্রিয় তারকার কফিনের উদ্দেশে ছুঁড়ে দিয়েছেন চুম্বন। মারাদোনার ১০ নম্বর জার্সি পড়েই ফুটবলের রাজপুত্রকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে এসেছিলেন অনেকেই। আর্জেন্টিনার জাতীয় পতাকা আর জাতীয় দলের হয়ে তাঁর পরা ১০ নম্বর জার্সি দিয়েই ঢেকে রাখা হয়েছিল মারাদোনার কফিন। এরপর বুয়েনস আয়ার্স শহরের প্রান্তে বেল্লা ভিস্তা সমাধিস্থলে নিয়ে যাওয়া হয় দিয়েগোর কফিনবন্দি দেহ। সেখানেই তাঁর বাবা এবং মায়ের সমাধিস্থলের পাশে সমাহিত করা হয় ফুটবলের রাজপুত্রকে। শেষকৃত্যের অনুষ্ঠানে শুধুমাত্র মারাদোনার পরিবারের সদস্য এবং ঘনিষ্ঠ কয়েকজন উপস্থিত ছিলেন বলে জানা গিয়েছে।
বৃহস্পতিবার সকালে প্রেসিডেন্সিয়াল প্যালেসে পৌঁছায় মারাদোনার নশ্বর দেহ। আর্জেন্টিনার সংবাদমাধ্যম বুয়েনস আয়ার্স টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, কাসা রোসাদায় দিয়েগোর মরদেহ রাখার জন্য যাবতীয় প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। করোনা মহামারী শুরুর পর থেকে ব্যবহার না করা ভবনের বিভিন্ন জিনিসপত্র বের করে নিয়ে আসা হয়েছে। সেখানেই মারাদোনাকে শেষ শ্রদ্ধা জানান ভক্ত থেকে প্রাক্তন সতীর্থ ও তাঁর পরিবার। 
 

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top