আজকালের প্রতিবেদন: এলএম১০ এবং সিআর৭। আধুনিক বিশ্ব ফুটবলে যাবতীয় আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে এই ৪টি অক্ষর এবং ২টি সংখ্যা। প্রথমটি লিওনেল মেসি, দ্বিতীয়টি ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর আদুরে নাম। রোজ প্রায় সবকিছু নিয়ে তুলনা হয় দুজনের মধ্যে। ফারাক বেরোয় উনিশ–‌বিশ। কিন্তু একটি ব্যাপারে দুজনের কোনও তুলনাই করা যাচ্ছে না। ট্যাটু। 
মেসির যেখানে ডান হাত আর বাঁ হাত ভর্তি ট্যাটু, সেখানে রোনাল্ডোর শরীরে একটিও ট্যাটু নেই। শুধু তা–‌ই নয়, তিনি জানিয়ে দিয়েছেন, কোনও দিন শরীরের কোথাও ট্যাটু করাবেনও না। তার কারণও জানা গেছে। রোনাল্ডো নিয়মিত রক্ত এবং অস্থিমজ্জা দেন। ট্যাটু থাকলে যে একেবারেই রক্ত দেওয়া যায় না তা নয়, কিন্তু চিকিৎসকদের পরামর্শ হল, রক্ত দিলে ট্যাটু না থাকাই ভাল। রেড ক্রস সংস্থার নিয়ম হল, ট্যাটু করানোর পর অন্তত ১২ মাস রক্ত দেওয়া যাবে না। ব্রিটেনের বিভিন্ন সংস্থা বলে, ট্যাটু করানোর পর অন্তত চার মাস অপেক্ষা করে তবেই রক্ত দেওয়া উচিত।
যেহেতু রোনাল্ডো নিয়মিত রক্ত এবং অস্থিমজ্জা দেন, তাই তিনি ট্যাটু করান না। টুইটার, ইনস্টাগ্রামের মতো সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি হামেশাই রক্ত দেওয়ার জন্য তাঁর অগুন্তি ভক্তের উদ্দেশে আবেদন করেন। ‌‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top