আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ আইপিএলের রূপরেখা তৈরির জন্য ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকদের সঙ্গে মঙ্গলবার কনফারেন্স কলে বসার কথা ছিল বোর্ড-কর্তাদের। কিন্তু করোনার জেরে পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে সেই কনফারেন্স কল বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। আর তার ফলে আইপিএলের ভবিষ্যৎ নিয়ে উঠে গেল প্রশ্ন।
চলতি বছরের আইপিএল শুরু হওয়ার কথা ছিল ২৯ মার্চ। কিন্তু করোনার থাবায় ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত তা পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। তার পরেও যে টুর্নামেন্টের বল গড়াবে, এমন কোনও নিশ্চয়তা নেই।
কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের সহ মালিক নেস ওয়াদিয়া বলেন, ‘মনু্ষ্যত্ব সবার আগে। তার পরে বাকি সব কিছু। এখনও পর্যন্ত পরিস্থিতির একটুও উন্নতি হয়নি। ফলে এখনই আইপিএল নিয়ে আলোচনা করার মতো অবস্থা নেই।’
আগে আইপিএল শুরুর পাঁচটি সম্ভাব্য তারিখ স্থির করে রেখেছিল বোর্ড। তা অবশ্য সপ্তাহখানেক আগের ঘটনা। গোটা বিশ্বের করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার নিচ্ছে। এ দেশেও বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। একাধিক রাজ্যে ‘লকডাউন’ ঘোষণা করে দেওয়া হয়েছে। এই আবহে নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক এক ফ্র্যাঞ্চাইজি কর্তা বললেন, ‘এই অবস্থায় আলোচনা করে কোনও লাভই নেই। আইপিএলের থেকেও গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে এখন আমাদের চিন্তা করতে হচ্ছে।’
বিশ্বের সমস্ত খেলাধূলা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এবারের ইউরো পিছিয়ে গিয়েছে। অলিম্পিকও পিছিয়ে যেতে পারে। এমনই ইঙ্গিত দিয়েছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী। ওয়াদিয়া বলছেন, ‘আমরা অনেক সময়েই সরকারের বিরোধিতা করে থাকি। কিন্তু এই পরিস্থিতিতে সরকার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তার প্রশংসা করতেই হবে। সরকারের তরফে ইতিবাচক সিদ্ধান্তই নেওয়া হয়েছে।’
বিসিসিআই আইপিএল নিয়ে এখনও চূড়ান্ত কোনও সিদ্ধান্ত নেয়নি। ফ্র্যাঞ্চাইজি কর্তার  তাঁদের ক্ষতির পরিমাণ কমানোর কথা ভাবছেন। বোর্ডের এক কর্তা বলেছেন, ‘অলিম্পিকের মতো মেগা ইভেন্ট যদি পিছিয়ে যেতে পারে, তা হলে আইপিএল তো তুলনায় অনেক ছোট। এই অবস্থায় আইপিএল আয়োজন করা কঠিন হয়ে পড়ছে।’

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top