সংবাদ সংস্থা, অকল্যান্ড: দু’‌দিন আগেই নিউজিল্যান্ডে পা রেখেছে ভারতীয় দল। প্রাক ম্যাচ সাংবাদিক বৈঠকেও ঠাসা সূচির বিষয়ে মুখ খুলেছিলেন বিরাট কোহলি। কিন্তু দলের অন্দরে যে সে বিষয়ে কোনওরকম কথা হয়নি, এদিন পরিষ্কার করে দিলেন বিরাট।
পুরস্কার বিতরণী মঞ্চে দাঁড়িয়ে তিনি বলেন, ‘‌জেট ল্যাগ বা এ ধরনের বিষয় নিয়ে দলের মধ্যে আমরা কোনও আলোচনাই করি না। কারণ কোনও কিছুকে অজুহাত হিসেবে দাঁড় করাতে চাই না। তাতে ফোকাস নড়ে যায়। অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে দারুণ একটা সিরিজ শেষ করে এসেছি। এখানেও সেই ছন্দটা ধরে রাখতে চেয়েছিলাম। দু’‌দিন আগে এখানে পা রেখেছি। তারপর এরকম অনবদ্য একটা ম্যাচ খেললাম। এটাই আমাদের পুরো সিরিজের ছন্দ বেঁধে দিল।’‌ সঙ্গে যোগ করেন, ‘‌আমরা ম্যাচটা উপভোগ করেছি। গ্যালারির ৮০ শতাংশ দর্শক আমাদের সমর্থনে গলা ফাটাচ্ছিল। দুশো রান তাড়া করতে নেমে এরকম সমর্থন পেলে কাজ অনেকটাই সহজ হয়ে যায়।’‌
বিপক্ষের বোর্ডে দুশো রান উঠে যাওয়ার পিছনে জঘন্য ফিল্ডিংয়ের অবদানের কথাও স্বীকার করে নিয়েছেন বিরাট। তাঁর কথায়, ‘‌অবশ্যই এরকম ফিল্ডিং চিন্তার বিষয়। মনে করি এটায় উন্নতির প্রয়োজন। এখানকার মাঠের সঙ্গে যত দ্রুত সম্ভব মানিয়ে নিতে হবে।’‌ এদিন ইনিংসের শেষ ওভারে বোলিংয়ের সময় বাঁ–পা ঠিকভাবে না পড়ায়, পড়ে গিয়েছিলেন বুমরা। ছুটে এসেছিলেন সতীর্থরা। যদিও স্বমহিমায় পরের চারটি বল করেছিলেন। তবুও তাঁকে নিয়ে যেন কিছুটা চিন্তিত ভারতীয় শিবির।
ইডেন পার্কে অনবদ্য ব্যাটিংয়ে ম্যাচ সেরার পুরস্কার নিতে এসে শ্রেয়স আইয়ার বলেন, ‘‌বিদেশ সফরে এসে দলের জয়ে এভাবে অবদান রাখতে পারলে কার না ভাল লাগে। ম্যাচ জিতিয়ে মাঠ ছেড়েছি এটাই আমার সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি। প্রথমবার ইডেন পার্কে খেলতে নেমেছিলাম। দারুণ একটা অভিজ্ঞতা হল।’‌ ২০৩ রান তুলেও ম্যাচে হার প্রসঙ্গে কিউয়ি অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের প্রতিক্রিয়া, ‘‌শিশির সামান্য প্রভাব ফেলেছে ঠিকই। তবে ভারতীয় দল দক্ষতার সঙ্গেই ম্যাচ জিতেছে। ধারাবাহিকভাবে আমাদের চাপে ফেলেছে। সেখান থেকে আমরা ঘুরে দাঁড়াতে পারিনি। তবে এই ম্যাচের ইতিবাচক দিকগুলো নিয়েই পরের ম্যাচগুলোয় ঘুরে দাঁড়াতে চাই।’‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top