দেবাশিস দত্ত- ডামাডোলের মধ্যে থেকেও ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের কর্তারা শুদ্ধিকরণের কথা ভাবছেন। ভূতের মুখে রামনামের মতো নয়। বয়স ৭০ পেরিয়েছে। এই বয়সে শুধু শেখার আগ্রহ নয়, কমিটি অফ  অ্যাডমিনিস্ট্রেটর্স–এর প্রধান বিনোদ রাই অন্তত শুদ্ধিকরণের চেষ্টায় ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। মঙ্গলবার দিল্লিতে সিওএ–র সভা। আলোচ্য বিষয়, বোর্ডে সুস্থ আবহাওয়া ফিরিয়ে দেওয়া। তারপর তাঁদের আর প্রয়োজন হবে না। এ জন্যই কি নানা কারণে বোর্ডের অন্দরমহলের সমস্যার সমাধান করতে গিয়ে একটু বেশি সময় নিয়ে ফেললেন?‌ অস্থায়ী সভাপতি, সচিব, কোষাধ্যক্ষরা বহুবার প্রকাশ্যে বলেছেন, অনভিজ্ঞতার কারণে সিওএ এমন অনেক ভুল করে চলেছেন, যার মাশুল দিতে হচ্ছে এখন বোর্ডকে। সে লম্বা ইতিহাস। গরমাগরম তর্ক–বিতর্কের আসর।
সে সব দিকে নজর না দিয়ে বিনোদ রাই আগামী কাল শুদ্ধিকরণ করার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছেন সাইমন লংস্টাফকে। আগ্রহী পাঠকদের মনে থাকতেই পারে যে, এই অস্ট্রেলীয়র হাতেই ওদেশের ক্রিকেট বোর্ড শুদ্ধিকরণের রাস্তা খোঁজার দায়িত্ব দিয়েছিল। সেই সময়, যখন সিরিশ কাগজ ঘষে স্টিভ স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নার, ব্যানক্রফটরা বলের আকৃতি পাল্টাতে গিয়ে গোটা বিশ্বে ধিক্কৃত হয়েছিলেন। এই তিন ক্রিকেটারকে অস্ট্রেলিয়া দিয়েছিল ১ বছরের জন্য নির্বাসন। গোটা ঘটনাটা নিয়ে ১৭৩ পাতার যে রিপোর্ট জমা দিয়েছিলেন লংস্টাফ সেখানে কিন্তু পরিষ্কারভাবেই তিনি উল্লেখ করেছিলেন যে, অত্যন্ত কড়া মনোভাব দেখিয়ে ফেলেছিল ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। আরও নমনীয় হওয়া উচিত ছিল তৎকালীন কর্তাদের। ধীরে ধীরে পরিস্থিতি যখন সহজ হয়ে এসেছে ব্র‌্যাডম্যানের দেশে, তখন অনেকেই খুঁজে পেয়েছেন লংস্টাফের ওই রিপোর্টে এমন কিছু যুক্তি, যা নাকি শান্তিপ্রক্রিয়া ফিরিয়ে আনার পক্ষে ছিল এক অব্যর্থ দাওয়াই। এটা জেনেই বিনোদ রাই–রা মঙ্গলবার দিল্লিতে তাঁর সামনে ছাত্র হয়ে বসতে চেয়েছেন।‌ এখন দেখার বিষয়, কীভাবে বিনোদ রাই, ডায়ানা এডুলজিরা লংস্টাফের পরামর্শ হজম করে নতুনভাবে কাজ করার প্রক্রিয়ায় ঢুকতে পারেন। থাকবেন বোর্ডের সিইও রাহুল জহুরিও। অন্দরমহলের অনেক কর্তাই নানা অপকর্ম করে দিব্যি কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। লংস্টাফের কথা শুনে এঁরা সবাই কি রাতারাতি ‘‌সাধু’‌ হয়ে যাওয়ার উদ্যোগ নেবেন। নাকি যেমন চলছিল, তেমন রাস্তাতেই থাকতে চাইবেন। নিজেদের রাস্তায় থাকতে চাওয়া মানে অনেক যোগ্যকে বঞ্চিত করে আরামসে আরও বেশি সুযোগ–‌সুবিধা নিঃশব্দে হজম করে যাওয়া। লংস্টাফ সেসব জানেন না। তাই এমন গুণী মানুষের বক্তৃতা এক কান দিয়ে ঢুকিয়ে অন্য কান দিয়ে বের করে দেওয়াতেই কর্তারা ব্যস্ত হয়ে পড়বেন।‌‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top