অগ্নি পাণ্ডে: দায়িত্বের মেয়াদ বাড়তেই ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা ভেবে ফেলেছেন বাংলার কোচ অরুণলাল। সরকারিভাবে সিএবি সোমবার বাংলা সিনিয়র দলের কোচ হিসেবে অরুণলালকে দ্বিতীয়বারের জন্য মনোনীত করেছে। সঙ্গে রেখে দিয়েছে গত মরশুমের সাপোর্ট স্টাফদেরও।
গত মরশুমে বাংলা ফাইনালে গেলেও রনজি ট্রফি জিততে পারেনি। তাই এবার অরুণ আরও এক ধাপ পারফরমেন্স বাড়ানোর আর্জি জানাবেন ক্রিকেটারদের। মঙ্গলবার তিনি বলছিলেন, ‘বোলার, ব্যাটসম্যান, ফিল্ডার— সকলকে গত মরশুমের থেকে আরও একধাপ পারফরমেন্স ভাল করতে হবে। তবেই না এবার চ্যাম্পিয়ন হব!‌ আমি খুশি একই সাপোর্ট স্টাফদের রেখে দেওয়ায়। প্রত্যেকে গত মরশুমে অসাধারণ কাজ করেছে। রণদেব বসু ফাস্ট বোলারদের নিয়ে দুর্দান্ত কাজ করেছে। ডেভিড (উৎপল চ্যাটার্জি) দুর্দান্ত। ভিডিও অ্যানালিস্ট গৌতমের কথাও বলতে চাই। রাত ১১টায় কখনও কোনও ভিডিও ফুটেজ দেখতে চাইলে রাত জেগে কাজ করে আমাকে পাঠিয়েেছ। ফিজিও উসমান দারুণ সব আইডিয়া দিয়েছে! ট্রেনার হারু মুখ বুজে ট্রেনিং দিয়ে ক্রিকেটারদের সেরাটা বের করে এনেছে। এবারও আমরা সফল হব।’
আগামী মরশুমের জন্য বাংলার ক্রিকেটারদের ‘লালজি’ থিম হল— ‘আগামী মরশুমে বোলাররা বল পালিশ করতে থুতু বা ঘাম ব্যবহার করতে পারবে না। তাই জোরে বোলারদের বলব বলের গতি আরও বাড়াতে। গতিতে বিপক্ষকে হারাতে হবে। গতি, গতি, গতি। এর বিকল্প নেই। ব্যাটসম্যানরা সবাই গত মরশুমে ধারাবাহিক সফল ছিল না। এবার ওদের ধারাবাহিক হতে হবে। এখনই সব ক্রিকেটার ট্রেনিং শুরু করে দিেয়ছে। লকডাউনে বসে থাকেনি। আমরা ভিডিও দেখছি। বাড়িতেই হার্ড ট্রেনিং করছে। শক্তি বাড়ালেই গতি বাড়বে।’
গত মরশুমে অধিনায়ক অভিমন্যু ঈশ্বরনকে অফ ফর্মে ছিলেন। তাঁকে কি আবার অধিনায়ক রাখা হবে? অরুণলালের মতে, ‘মনে করি না নেতৃত্ব চাপে ফেলেছিল ওকে। ঘটনাচক্রে ক্যাপ্টেন হওয়ার পর সেভাবে রান পায়নি। কিন্তু আমি বিশ্বাস করি ও চ্যাম্পিয়ন ব্যাটসম্যান। কথা বলব ওর সঙ্গে। মাঝেমধ্যে অফ ফর্ম যায় সবারই। আমি চাই অভিমন্যুকে ক্যাপ্টেন রাখা হোক। ওর নেতৃত্বে বাংলা রনজি ফাইনাল খেলেছে। মাঠে দাঁড়িয়ে ও–ই নেতৃত্ব দিয়েছে।’
গত মরশুমে জুলাই থেকেই কন্ডিশনিং ক্যাম্প শুরু করে দিয়েছিলেন অরুণ। এবার তিনি সেটাই চাইছেন। বলছেন, ‘৮ জুন কথা বলব সিএবি–র সঙ্গে। সিদ্ধান্ত সিএবি–কে নিতে হবে।’

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top