আজকালের প্রতিবেদন- গুজবের জেরে হেনস্থার শিকার হলেন শিলিগুড়ির টেবিল টেনিস খেলোয়াড় অঙ্কিতা দাস। তাঁর পরিবারকেও একই পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যেতে হচ্ছে। করোনাভাইরাস নিয়ে যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে তার থেকেই এই ঘটনা। জার্মানি থেকে বাড়ি ফেরার পরেই ঘটেছে এই কাণ্ড। ফেসবুকে সেই অভিজ্ঞতার কথা জানিয়েছেন অঙ্কিতা। জার্মানিতে অনুশীলনে ব্যস্ত ছিলেন। করোনাভাইরাসের প্রকোপ সে দেশে ক্রমশ বাড়তে থাকায় ১০ মার্চ দেশে ফেরেন ২০১২ অলিম্পিকে প্রতিনিধিত্ব করা অঙ্কিতা। এরপরেই তাঁকে নিয়ে স্থানীয় এক সংবাদপত্রে ভুল প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। পাশাপাশি এক প্রতিবেশীও ফেসবুকে লেখেন, বিদেশ থেকে করোনায় সংক্রামিত হয়ে ফিরেছেন অঙ্কিতা। এরপরেই গোলমাল বাধে। অঙ্কিতা এবং তাঁর পরিবারকে অন্যত্র চলে যাওয়ার জন্য শাসাতে থাকেন প্রতিবেশীরা। স্থানীয় কাউন্সিলরকেও ডাকা হয়। অঙ্কিতা বলেছেন, ‌‌‌‌‘বাড়ি ফেরার পর মা এবং কাকাকে দূরেই থাকতে বলেছিলাম। স্নান করার পর থেকে আলাদা ঘরে রয়েছি। পরিবার নিয়ে চিন্তিত বলে সবরকম সতর্কতামূলক পদক্ষেপ নিয়েছি। কিন্তু কিছু প্রতিবেশী গুজব ছড়াতে থাকেন। আমি নাকি আগেরদিনই ফিরেছি এবং মিথ্যে কথা বলছি। আমাকে জিজ্ঞাসা করলে সবকিছু বলে দিতাম। কিন্তু কাউন্সিলরকে ডেকে এনে আমাকে অপমান করা হয়। গত তিনদিন ধরে এটা চলছে। তাই জন্যেই ফেসবুকে লিখেছি।’‌ ফেসবুকে অঙ্কিতা লিখেছেন, তাঁরা কেউই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত নন। নিরাপদে থাকবেন বলে ওমান ওপেনেও খেলেননি তিনি।‌‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top