দেবাশিস দত্ত, লন্ডন, ৬ সেপ্টেম্বর‌— অদ্ভুত ব্যাপার। সহঅধিনায়ক হয়েও দলে তঁার মতামত যে বিশেষ গুরুত্ব পায় না, তা তিনি নিজে জানেন। এবং জানে ভারতের ক্রিকেট মহল। এখনকার এই ভারতীয় দলে অধিনায়ক বিরাট কোহলিই শেষ কথা। তিনি যা বলবেন, তা সবাইকে মানতে হবে। তাই হনুমা বিহারী নামে অন্ধ্রপ্রদেশের ডানহাতি ব্যাটসম্যানের (‌মাঝেমধ্যে অফস্পিন বলও করে থাকেন)‌ ওভালে খেলার সম্ভাবনা যে প্রবল, তা প্রচারমাধ্যমের নজরে এসেছে। হনুমা কি খেলবেন?‌ অভিষেক হবে তঁার?‌ অসহায়ভাবে তাকানোর পর নিজেকে সামলে নিলেন অজিঙ্ক রাহানে, ‘‌আপনারা না সত্যিই স্মার্ট। তবে এ সব ব্যাপারে আমি কিছু জানি না। যা জানার, তা জানেন, বলতে পারবেন ক্যাপ্টেন এবং কোচ।’‌ তিনি নিজেও কি জানেন না?‌ বিলক্ষণ জানেন। কিন্তু এ সব অন্দর কি বাত ঘোষণা করার ক্ষমতা তঁাকে দেওয়া হয়নি। কোচ রবি শাস্ত্রী হনুমার সঙ্গে আলাদা করে কথা বলছেন, নেটে তঁাকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। এ সব দেখেশুনেই প্রচারমাধ্যম সহঅধিনায়কের কাছে সহজ একটা প্রশ্ন রেখেছিল। কিন্তু তিনি সরাসরি উত্তর দিলেন না, মুখ থেকে বেরিয়ে গেল, ‘‌আপনারা খুব স্মার্ট।’‌ আদতে তিনি তো পরোক্ষে মেনেই নিলেন যে, হনুমার খেলার সম্ভাবনা রয়েছে ওভালে।
শুরুতেই বলেছি আজব ব্যাপারের কথা। দল কেমন খেলছে, এ প্রশ্নের জবাবে বিরাট কোহলি, রবি শাস্ত্রী যে মতামত পোষণ করেছেন, অজিঙ্কও কিন্তু একই সুরে কথা বলে গেলেন, ‘‌আমরা খুব খারাপ খেলিনি। আমরা ‘‌গুড’‌ হলে ইংল্যান্ড ‘‌বেটার’‌। প্রতি দু’‌ঘণ্টার যে সেশনে খেলা হয়, সেখানে ইংরেজ ক্রিকেটাররা এমন ছোট ছোট কয়েকটা ব্যাপারে নজর দিয়ে ভাল করেছে যে, তাতেই ব্যবধান তৈরি হয়েছে। মানতেই হবে, ইংরেজ বোলাররা সারাক্ষণ আমাদের চাপের মধ্যে রাখার নিরন্তর চেষ্টা করে গেছে।’‌
কী হবে, ৪–‌১, না কি ৩–‌২?‌ উত্তর দিলেন অজিঙ্ক, ‘‌আমরা ১০০ শতাংশ আন্তরিকভাবে চেষ্টা করব। ওভাল টেস্ট জিতে দেশে ফিরতে চাই। সিরিজ শেষ হোক আমাদের জয়ের মাধ্যমে। সিরিজ হেরে গেছি বলে কোনও গা–‌ছাড়া মনোভাব আমাদের মধ্যে দেখবেন না। প্রত্যেকটি টেস্ট ম্যাচ আমরা সমান গুরুত্ব দিয়ে খেলতে চাই।’‌
ভাল খেলছে, কিন্তু হেরে যাচ্ছে দল, এ ব্যাপারে তিনি ইংরেজ বোলারদের তীক্ষ্ণ বোলিংয়ের কথা উল্লেখ করেছেন আগে। এবার যোগ করলেন, ‘‌মইন আলির কথা আলাদা করে বলতে হবে।’‌ (‌বলছিলাম না, শাস্ত্রী, কোহলির সুরেই কথা বলেন অজিঙ্কও। মইনের প্রশংসা ক’‌দিন আগেই করে গিয়েছেন ভারতের ক্যাপ্টেন এবং কোচ। অজিঙ্কের কথাতেও তাই একই সুর)‌।
মেনে নিলেন যে, বেশি রান করতে পারেননি এই সিরিজে, ‘‌তবে আমি সাধ্যমতো চেষ্টা করে গেছি। ৩–‌১ ব্যবধানে পিছিয়ে পড়ার কথা ভুলে গিয়ে ওভালে আমি বড় রান করতে চাইব। কারণ, আমি নিজের ব্যাটিং এখানে উপভোগ করছি। ব্যাটের মাঝখান দিয়ে খেলতে পারছি। ওভালে একটা বড় ইনিংসের লক্ষ্যে থাকব।’‌
ধৈর্যের পরীক্ষা দেওয়ার কথা জানিয়ে গেলেন অজিঙ্ক, ‘‌ব্যাটিং অথবা বোলিং— দুটি বিভাগেই আমাদের ধৈর্য ধরে চেষ্টা করে যেতে হবে। বিরাট যে বলছে ম্যাচ জেতার মঞ্চে পৌঁছতে পারা শিখতে হবে, এ ব্যাপারে আমি একমত। ধৈর্য দেখাতে পারলেই ব্যবধান ঘুচে যাবে। আবার বলছি, আমরা ভুল করিনি বিশেষ। কিন্তু ইংল্যান্ড আমাদের চেয়ে ভাল খেলেছে। (‌একই কথা শাস্ত্রী, কোহলিরাও বলেছেন আগে)‌।
অজিঙ্ক মনে করছেন নিজেদের শিবিরের বোলারদের যোগ্যতার সঙ্গে যদি ব্যাটসম্যানরা মানানসই হয়ে উঠতে পারে, তাহলে ওভালে জিততে অসুবিধা হবে না, ‘‌জেতা ছাড়া অন্য কোনও কথা আমরা ভাবছি না। শুধু ক্রিকেটেই মন আছে আমাদের। ব্যাটিং ব্যর্থতায় ভুগছি শুধু আমরা নই। ইংল্যান্ডের ব্যাটিংও কি খুব ভাল হয়েছে?‌’‌ (‌এই কথাগুলিও তো কোহলি, শাস্ত্রীরা বলেছেন আগে)‌।
এবং সবশেষে জানিয়ে গেলেন, ‘‌বিরাট কোহলি ছাড়া দুই শিবিরের কোনও ব্যাটসম্যানই কিন্তু ধারাবাহিকতা দেখাতে পারেনি।’‌ ৫৪০ রান করে বিরাট চলতি সিরিজে দু’‌দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি রান করেছেন। এ কথা আমরা সবাই জানি। ওভালে যদি জিততে হয়, তাহলে বিরাটকে এখানেও রান করতে হবে। বিরাট যদি তাড়াতাড়ি ফিরে যান, তাহলে ৪–‌১ ব্যবধান নিশ্চিত হওয়ার দিকেই এগোবে।‌‌‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top