আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ মহারাষ্ট্রে দেখা গেল বিহারের প্রকৃত ছবি। ‌মহারাষ্ট্রে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করা হয়েছে। আর তা নিয়ে এখন জাতীয় রাজনীতি উত্তাল। কারণ সময়ের আগেই এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে। অনেকেই বলছেন, রাষ্ট্রপতি শাসন আসলে কেন্দ্রীয় সরকারের শাসনের নামান্তর। কারণ পরোক্ষে তা দখলে থাকবে কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদির সরকারের নিয়ন্ত্রণাধীন। কিন্তু অনেকেই ভুলে গিয়েছেন মনমোহন সিং সরকারের আমলেও এমন ঘটনা ঘটেছিল। তবে স্থানটি মহারাষ্ট্র ছিল না। স্থানটি ছিল বিহার। 
এখন প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে, তাহলে কী দুই প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতা দখলে রাখতে একই পদক্ষেপ নিলেন?‌ সরাসরি উত্তর এখনও কেউ দেননি। তবে কংগ্রেস যেভাবে হাতে সুযোগ পেয়েও ব্যাকফুটে গেল তাতে পূর্বের ঘটনাকেই মনে করিয়ে দিচ্ছে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা। কারণ এনসিপি–কে সরে দাঁড়াতে বলল কংগ্রেস। শিবসেনাকে সরাসরি সমর্থন করল না কংগ্রেস। আবার এনসিপি–শিবসেনা জোটকে বাইরে থেকে সমর্থন করে সরকার গঠন করতেও সাহায্য করল না কংগ্রেস। ফলে জারি হয়ে গেল রাষ্ট্রপতি শাসন। 
কিন্তু মোদি–মনমোহনের মিল কোথায়?‌ ঠিক কী ঘটেছিল?‌ রাজনীতির অতীত ইতিহাস বলছে, সালটা ছিল ২০০৫। বিহারে জারি হয়েছিল রাষ্ট্রপতি শাসন। তখন কেন্দ্রে ইউপিএ সরকার। নেতৃত্বে প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং। ১৪ বছর আগে বিহারে বিধানসভা নির্বাচনে ত্রিশঙ্কু পরিস্থিতি তৈরি হয়। তখন বিজেপি–জেডি(‌ইউ)‌ জোট পেয়েছিল ৯২টি আসন। বিজেপি–৩৭, জেডি(‌ইউ)‌–৫৫। আর লালুপ্রসাদের দল আরজেডি একা পেয়েছিল ৭৫টি আসন। কংগ্রেস পেয়েছিল মাত্র ১০টি আসন। যেখানে যাদু সংখ্যা ছিল–১২২। আর সেটায় পৌঁছতে এক হতে পারত জেডি(‌ইউ)‌ ও আরজেডি। শুধু বিজেপি থেকে বেরিয়ে আসতে হতো নীতীশের দলকে। এই পরিস্থিতিতে তৎকালীন রাজ্যপাল বুটা সিং রাষ্ট্রপতি জারি করার সুপারিশ করেন। মধ্যরাতে জারি হয়ে যায় রাষ্ট্রপতি শাসন। তখন রাষ্ট্রপতি ছিলেন এপিজে আবদুল কালাম। মস্কো সফর থেকেই তিনি ফ্যাক্স করেছিলেন। এবার একই ঘটনা ঘটল মহারাষ্ট্রেও। 

জনপ্রিয়

Back To Top