আজকাল ওয়েবডেস্ক :‌ ব্যাংকক থেকে ভোরের বিমানে নিজের শহরে ফিরে আজব অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হলেন গুয়াহাটির এক যুবতী। ঘটনাটি ঘটেছিল রবিবার গুয়াহাটি বিমানবন্দরে। ভোর ৬.‌৩০ মিনিটের বিমানে ব্যাংকক থেকে দেশে ফেরেন অর্চিস্মিতা চৌধুরি নামে ওই যুবতী। তিনি টুইটারে লিখেছেন, সিকিওরিটি চেকিং–এর পর তাঁকে অভিবাসন শাখার এক অফিসার প্রশ্ন করেন তিনি গুয়াহাটির বাসিন্দা কিনা। অর্চিস্মিতা সেকথা জানালে এরপরই ওই অফিসার তাঁকে প্রশ্ন করেন তাঁর নাম এনআরসি তালিকায় আছে কিনা। কারণ তাঁদের কাছে নির্দেশ রয়েছে, এনআরসি–তে নাম না থাকলে সেই সব মানুষদের দেশে প্রবেশ করতে বা দেশ ছাড়তে না দিতে। সোশ্যাল মিডিয়ায় অর্চিস্মিতা ক্ষোভ উগড়ে দিয়ে বলেছেন, ‘‌ভারত এখন আমার কাছে ভয়ের জায়গা। আমাদের সমাজের একটা অংশের নাগরিকত্ব ছেঁটে ফেলা হয়েছে।’‌ অবশ্য টুইটারে তিনি একথাও লিখেছেন, ওই অফিসার তাঁকে কোনও নির্দেশাবলি দেখাননি আর তিনিও তা দেখতে চাননি।
মুম্বইয়ের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থায় কাজ করেন অর্চিস্মিতা। কর্মসূত্রেই তাঁকে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে যেতে হয়। তাঁর ২০১৪ সাল থেকে পাসপোর্টও করা আছে। এবার সেজন্যই তিনি ব্যাংকক গিয়েছিলেন। ওই অফিসারে বিরুদ্ধে এখনও কোনও থানায় অভিযোগ দায়ের না করলেও টুইটারে তিনি প্রশ্ন তুলেছেন, এনআরসির–তে নাম তোলার সময় যাঁরা কর্মসূত্রে প্রবাসে ছিলেন, তাঁদের ভারত সরকার দেশে ঢুকতে না দিয়ে ডিটেনশন সেন্টারে নিয়ে যাচ্ছে কিনা। এব্যাপারে অসমের রাজ্য স্বরাষ্ট্র দপ্তরের কাছেও কোনও নির্দেশিকা নেই বলেই জানা গিয়েছে।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top