আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ এক ওয়ার্ড থেকে অন্য ওয়ার্ডে নিয়ে যাওয়া হবে রোগীকে। ওয়ার্ডবয় ৩০ টাকা চাইছে। অগত্যা তাই স্ট্রেচার ঠেলতে থাকে রোগীর ছ’‌ বছরের নাতি। সঙ্গে টানতে থাকেন মেয়ে। সেই ভিডিও ভাইরাল। উত্তরপ্রদেশের দেওরিয়া জেলার ঘটনা। হাসপাতালের ওয়ার্ড বয়কে সাসপেন্ড করা হয়েছে।
আট সেকেন্ডের ভিডিও দেখে স্তব্ধ নেটিজেনরা। তুমুল সমালোচনা শুরু হয়। সোমবার দেওরিয়ার ওই হাসপাতালে গিয়ে ওয়ার্ড বয়কে সাসপেন্ড করেন জেলা ম্যাজিস্ট্রেট। গোটা ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। 
গৌরা গ্রামের ছেদি যাদব দু’‌দিন আগে আহত হন। তাঁকে দেওরিয়ার সরকারি হাসপাতালের সার্জিক্যাল ওয়ার্ডে ভর্তি করানো হয়। তাঁকে ড্রেসিংয়ের জন্য পাশের একটি ওয়ার্ডে নিয়ে যেতে হয়। প্রতিবারই স্ট্রেচার টেনে নিয়ে যেতে ৩০ টাকা দাবি করে ওই ওয়ার্ডবয়। প্রৌঢ়ের স্ত্রী অসুস্থ। তাই হাসপাতালে থেকে দেখাশোনা করছেন মেয়ে বিন্দু। তিনি জানালেন, ‘‌ওয়ার্ডবয়কে টাকা দিতে অস্বীকার করি। তখন সে স্ট্রেচার টানতেও অস্বীকার করে। বাধ্য হয়ে আমি এবং আমার ছ’‌ বছরের ছেলে শিবম স্ট্রেচার ঠেলে পাশের ওয়ার্ডে নিয়ে যাই।’‌ সেই ভিডিও এখন ছড়িয়ে পড়েছে ইন্টারনেটে।   
দেওরিয়ার জেলাশাসক অমিত কিশোর সোমবার হাসপাতালে গেলেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলার পাশাপাশি চেদি যাদবের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গেও কথা বলেন। এর পর সদর এসডিএম ও হাসপাতালের অ্যাসিস্ট্যান্ট চিফ মেডিক্যাল অফিসারের সমন্বয়ে একটি টিম তৈরি করে, তদন্তের নির্দেশ দেন। যত দ্রুত সম্ভব এই টিমকে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে।

জনপ্রিয়

Back To Top