আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‌গগনযান অভিযান নিয়ে বেশ তৎপর ইসরো। মহাকাশে মানুষ পাঠানো হবে ওই অভিযানে। তবে তার আগে চলবে মহড়া। মহড়ায় সবুজ সংকেত পেলেই তবেই এগোবে ইসরো। সেই মহড়াতেও পাঠানো হবে একজন মহাকাশচারীকে। তবে রক্ত–মাংসের নয়। পাঠানো হবে একটি রোবটকে। নাম ‘‌ব্যোমমিত্রা’‌। রক্ত–মাংসের না হলেও মানুষের মতোই কথা বলতে পারে সে। মানুষের মতোই অনেক কাজ করতে সক্ষম। ইসরো চেয়ারম্যান কে শিবন জানিয়েছেন, রোবট প্রায় তৈরি হয়ে গিয়েছে। তাকে দিয়েই পরীক্ষা করা হবে যে মানুষকে নিরাপদে মহাকাশে পাঠিয়ে আবার ফেরত আনা সম্ভব হয় কিনা। ফাইনাল অভিযানের আগে দু’বার মানববিহীন যান মহাকাশে পাঠাবে ভারত। আর সেই দুটিতেই থাকবে এই যন্ত্র–মানবী। মোটামুটিভাবে মানুষ যা করতে পারে, সেইসব কাজই করবে এই রোবট। প্রথম উড়ান যাতে একেবারে ফাঁকা না যায়, সেই জন্যই এই ব্যবস্থা। চারজন মহাকাশচারীকে ইতিমধ্যেই বেছে নিয়ে ইসরো। গত বছরের সেপ্টেম্বরেই ১২ জন এয়ারফোর্স অফিসারকে বেছে নেওয়া হয়। এরা লেভেল–১ স্ক্রিনিং পার করেন। পরে চারজনকে অভিযানের জন্য বেছে নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়ছেন কে সিবান। প্রধানমন্ত্রী মোদি জানিয়েছিলেন, ২০২২ সালে ভারতীয় পুরুষ বা মহিলা ‘গগনযান’–এ মহাকাশে পাড়ি দেবেন। ভারতের জাতীয় পতাকা মহাকাশে উড়বে বলে উল্লেখ করেছিলেন তিনি। ২০২২–এর মধ্যে পুরো প্রোগ্রাম সম্পূর্ণ হবে বলে আশা করা হচ্ছে। আগামী ৩০ মাসের মধ্যে পাঠানো হবে প্রথম মানব–বিহীন স্পেসক্রাফট। আর মূল অভিযানে তিনজন মহাকাশচারীকে পাঠানো হবে। এই প্রোগ্রামে ১০,০০০ কোটি টাকা খরচ হবে বলে মনে করা হচ্ছে।
 

জনপ্রিয়

Back To Top