আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ দু’‌দিন আগেই সাংবাদিক বৈঠক করে ইসরো চেয়ারম্যান জানিয়ে দিয়েছেন, চন্দ্রযান ২–এর ল্যান্ডার চাঁদেই রয়েছে। চাঁদের দক্ষিণ মেরুর ভারতই প্রথম পৌঁছতে পেরেছে। ভারত ইতিহাস গড়েছে। হতে পারে, পরিকল্পনা মাফিক ল্যান্ডারকে সফ্টল্যান্ডিং করাতে ব্যর্থ হয়েছে। কিন্তু যে স্থানে ল্যান্ডারের নামার কথা ছিল, তার খুব কাছাকাছিই রয়েছে। ল্যান্ডারের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করার যথাসাধ্য চেষ্টা করছে ইসরো। কিন্তু সমস্যাটা অন্য জায়গায়। ইসরো জানিয়েছে, চাঁদের পৃষ্ঠদেশ থেকে ২.‌১ কিলোমিটার উচ্চতায় ল্যান্ডারের সঙ্গে ইসরোর গ্রাউন্ড কন্ট্রোলের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। কিন্তু ল্যান্ডারের গতিবিধি পর্যবেক্ষণের জন্য ইসরোর গ্রাউন্ড কন্ট্রোলের টিভির পর্দায় যে ছবি দেখা গিয়েছে, তা একেবারেই অন্য কথা বলছে।

চাঁদ থেকে ২.‌১ কিলোমিটার নয়, প্রায় ৩৩৫ মিটার উচ্চতায় ল্যান্ডারের সঙ্গে ইসরোর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে। 
ছবিতে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে, সবুজ ডটটি ল্যান্ডারকে নির্দেশ করছে। ঠিক ২ কিলোমিটারের সামান্য বেশি উচ্চতা থেকে ল্যান্ডারের গতিবিধি বদলাতে শুরু করে। কিন্তু যোগাযোগ তখনও ছিল। ল্যান্ডারের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে যখন তার উচ্চতা চাঁদের পৃষ্ঠদেশ থেকে ৫০০ মিটারের মধ্যে ছিল। চন্দ্রযানের অরবিটার থেকে ল্যান্ডারের বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর থেকে তার চাঁদের মাটিতে পা দেওয়া পর্যন্ত ল্যান্ডারের গতিবিধিকে তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছিল। ল্যান্ডার যখন চাঁদের খুব কাছাকাছি চলে আসে, সেইটা হল শেষ পর্যায়। সেই শেষ পর্যায়ের শুরু থেকেই একটু একটু করে সমস্যা দেখা দিয়েছিল। অন্তত ইসরো থেকে পাওয়া তথ্য তো তাই বলছে।    

জনপ্রিয়

Back To Top