আজকাল ওয়েবডেস্ক: রোবট আপনার সব কাজ করে দিচ্ছে, আপনার ফাই–ফরমাশ খাটছে। ভাবুন তো বিষয়টা কতটা রোমাঞ্চকর। না, তার জন্য আপনাকে কোনও বিজ্ঞানের জগতে যেতে হবে না, দেশের মধ্যেই তা উপলব্ধ। চেন্নাইয়ের পরুরে চালু হয়েছে দেশের মধ্যে প্রথম ‘‌রোবট রেস্তোরাঁ’‌। যেখানে রোবোটরা ওয়েটারের কাজ করে তাই নয়, তারা গ্রাহকদের সঙ্গে ইংরাজি–তামিল ভাষায় কথাও বলে।
চেন্নাইয়ের মুগিলিভাক্কাম–পরুরে অবস্থিত এই রেস্তোরাঁয় রয়েছে সাতটি নীল–সাদা রোবট। এই রোবটরা রেস্তোরাঁয় আসা অতিথিদের নরম পানীয় দিয়ে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানায়। অতিথিদের অর্ডার করা খাবার ও পানীয়ও টেবিলে পরিবেশন করার কাজ করে তারা।

এখানেই চমকের শেষ নয়। রেস্তোরাঁয় রয়েছে একটি মহিলা রোবটও। যে গ্রাহকের সব প্রশ্নের উত্তর দেয় এবং টেবিল নম্বর সম্বন্ধে অবগত করে তাঁদের। গল্‌ফ ও কালো রঙের থিমের ওপর তৈরি এই রেস্তোরাঁ রোবটের পাশাপাশি তাদের ইন্দো–এশিয়ান খাবারও যথেষ্ট সুস্বাদু বলে জানা গিয়েছে।
জানা গিয়েছে, প্রত্যেকটি রোবট তৈরি করতে ৫ লক্ষ টাকা খরচ হয়েছে। রেস্তোরাঁর কর্মীরা এই রোবটদের সুন্দরভাবে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন, যাতে তারা গ্রাহকদের সব আদেশ মেনে চলে। প্রতিটি রোবটের সঙ্গে একজন করে কর্মী সবসময়ই থাকেন, যদি কোনও জরুরী অবস্থা আসে তার জন্য। রেস্তোরাঁর জেনারেল ম্যানেজার কৈলাস বলেন, ‘‌ভারতে আমাদের তিনটে শাখা রয়েছে। রোবটরা গ্রাহকদের সঙ্গে কথা বলে এবং তাঁদের টেবিল নম্বর সংক্রান্ত প্রশ্ন থাকলে তার উত্তর দেয়।

আগে ভারতের কোনো রেস্তোরাঁতে রোবট খাবার পরিবেশন করেনি, আমরাই প্রথম এর ওপর কাজ করি এবং সফল হই। রোবটদের এখনও নাম দেওয়া বাকি রয়েছে। আমি রেস্তোরাঁয় আগত অতিথিদের বলব এদের নাম ঠিক করতে। তারপর আমরা নামকরণের একটা অনুষ্ঠান রাখব।’‌ তিনি জানান, রেস্তোরাঁয় দু’‌রকমের রোবট রয়েছে। একদল খাবার পরিবেশন করে এবং অন্যদল গ্রাহকদের সঙ্গে কথা বলে। জানা গিয়েছে, প্রত্যেকটি টেবিল একটা করে ট্যাব দেওয়া আছে। গ্রাহকরা খাবারের মেনু থেকে খাবার পছন্দ করার পর সেই অর্ডার সরাসরি রান্নাঘরে চলে যায়। গ্রাহকের সেই অর্ডার করা খাবার সঠিক টেবিলে নিয়ে আসে রোবট নিজে। বেঙ্গালুরুতেও এই রেস্তোরাঁ খোলার পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানান জেনারেল ম্যানেজার।        ‌

জনপ্রিয়

Back To Top