সোমনাথ গুপ্ত: কঠিন কথাকে সহজ করে বলার ক্ষমতা রাখেন পরিচালক জুটি নন্দিতা রায় ও শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়। তাঁদের দীর্ঘদিনের সহকারী পরিচালক অরিত্র মুখোপাধ্যায় সেই পথ অনুসরণ করেই তৈরি করলেন তাঁর প্রথম ছবি ‘‌ব্রহ্মা জানেন গোপন কম্মটি’‌।
ছবির কেন্দ্র এক ঝকঝকে অধ্যাপিকা শবরী। সে ছোটবেলা থেকে তার বাবার (‌সাহেব চট্টোপাধ্যায়)‌ কাছ থেকে শিখেছে পুজো-‌পাঠ, পৌরহিত্য। বাবা প্রয়াত। কিন্তু পৌরহিত্যকে সে তার ঐশ্বর্য বলেই মনে করে। সেই কাজে সহযোগী হিসেবে পায় অন্য কয়েকজনকেও।
এহেন শবরীর বিয়ের পর শুরু হল সমস্যা। তার শ্বশুরবাড়িতে অনেকেই প্রথমে জানে না তার পৌরহিত্যর খবর। যখন জানাজানি হয়ে গেল, তখন তার রাজনীতি-‌করা শ্বাশুড়ি (‌সোমা চক্রবর্তী)‌ থেকে জ্যোতিষী পিসি-‌শাশুড়ি (‌মানসী সিনহা)‌—অনেকেই হয় ওঠে খড়্গহস্ত। আর তার স্বামী (‌সোহম)‌?‌
সবই ক্রমশ প্রকাশ্য হয় এবং স্পষ্ট হয়ে ওঠে সংস্কারে আবদ্ধ এই সমাজের, পরিবারের মুখচ্ছবি।
মহিলা পুরোহিতকে কেন্দ্রে রেখে অনেক সংস্কার ও প্রথার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছে ‘‌ব্রহ্মা জানেন’‌। বিয়ের মন্ত্রে কেন কন্যাকে দান করা হবে?‌ কন্যা কি পণ্য?‌ স্পষ্টভাবে, কাহিনীসূত্রেই, এই প্রশ্নকে তুলে ধরেছে এই ছবি।
জিনিয়া সোনের কাহিনী, চিত্রনাট্য ও সম্রাজ্ঞী বন্দ্যোপাধ্যায়ের সংলাপ ছবিটির সম্পদ। খুব সুন্দর অভিনয় করেছেন ঋতাভরী চক্রবর্তী এবং সোহম, যিনি ‘‌কবীর সিং’‌ ছবিতে কবীরের বন্ধু হিসেবে ইতিমধ্যেই খ্যাতি পেয়েছেন অভিনয়ে। ভাল লাগে সোমা চক্রবর্তী, অম্বরিশ ভট্টাচার্য, মানসী সিনহার অভিনয়। প্রত্যেকেই ভাল অভিনয় করেছেন। ছোট্ট অবকাশে সাহেব চট্টোপাধ্যায়কেও মনে থেকে যায়। সঙ্গীত পরিচালনায় অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায় প্রশংসনীয়। এ’‌ছবির গানও গেয়েছেন শুধু নারীরাই।
নারীর জয়গান উচ্চারিত হলেও এই ছবি শুধু নারীর নয়, এই ছবি শুধু পুরুষেরও নয়, এই ছবি মানুষের।

জনপ্রিয়

Back To Top