‌অরিজিৎ গুপ্ত: এছবিতে পাহাড় আছে। বরফ আছে। কিন্তু এই ছবি আসলে মাটিতে বাস করা দুই মানবীর সম্পর্কের শীতলতা ও উষ্ণতার গল্প।
সুদীপ চক্রবর্তী পরিচালিত ‘‌বরফ’‌, প্রথমেই বলে রাখা যাক, ফর্মুলা অতিক্রম করে চলা একটি ছবি। দেবল গুহরায়ের গল্পে ও চিত্রনাট্যে তাই অন্যরকম স্বাদ নিয়ে আসে এই ছবি।
সমতল বা মাটির গল্প বলেই বোধহয় এছবির প্রধান দুই নারীর একজনের নাম মৃত্তিকা (‌ইন্দ্রাণী হালদার)‌। অন্য আর এক নারী—মৃত্তিকার শাশুড়ি (‌স্বাতীলেখা সেনগুপ্ত)‌।
মৃত্তিকার স্বামী শুভম (‌শতাফ ফিগার) পাহাড় ভালবাসে। এভারেস্ট জয় করতে গিয়ে সে নিখোঁজ হয়ে যায়। তার একবছর পরে এছবির গল্প শুরু। ফ্ল্যাশব্যাকে শুভম ফিরে আসে। মৃত্তিকার আপত্তি সত্ত্বেও শুভম পাহাড় জয় করতে যায়। মৃত্তিকা বলে, আসার সময় সে যেন বরফ নিয়ে আসে। কীভাবে?‌ একটা প্লাস্টিকের প্যাকেটে। উপায় বাতলে দেয় মৃত্তিকা। সেই বরফ জল হয়ে ফিরলেও আবার ফ্রিজে রেখে বরফ করে নেবে সে।
পাহাড়ে নিখোঁজ ছেলে ফিরে আসবেই—এমন একটা বিশ্বাসে স্থির মৃত্তিকার শাশুড়ি। এটা বারবার বলে কি মৃত্তিকাকে সংসারে বেঁধে রাখতে চান তিনি?‌ প্রশ্ন তোলে স্বয়ং মৃত্তিকাই। এবং প্রায়শই খটাখটি লাগে শাশুড়ি-‌বৌমায়।
বৌমা চাকরি করে।

সেখানে এক উচ্চপদস্থ সহকর্মী (‌সৈকত মিত্র)‌ ভালবাসে মৃত্তিকাকে। কিন্তু শুভমের স্মৃতি মৃত্তিকাকে বেঁধে রাখে কাঁটাতারের বেড়ায়।
একসময় সরকারি উদ্যোগে যখন শুভমের দেহ আর একবার খুঁজে দেখার উদ্যোগ নেওয়া হয়, তখন সঙ্গে যায় মৃত্তিকা আর তার শাশুড়ি। সারাক্ষণই একটা টেনশন বজায় থাকে ছবিতে—শুভম কি আদৌ ফিরবে?‌ খুঁজে পাওয়া যাবে তার দেহ?‌
এই সব প্রশ্নকে ছড়িয়ে রেখে, এই ছবিতে শাশুড়ি, বৌমার সম্পর্কের টানাপোড়েন উজ্জ্বল হয়ে ওঠে। একসময় মৃত্তিকা বলে ওঠে তার শাশুড়িকে—‘‌খুব অচেনা লাগছে আপনাকে।’‌ তখন শাশুড়ির উত্তর—‘‌অচেনা লাগছে, কিন্তু খারাপ লাগছে না তো?‌’‌ অসাধারণ একটা মুহূর্ত‌ তৈরি হয় ইন্দ্রাণী হালদার ও স্বাতীলেখা সেনগুপ্তর অভিনয়ে।
এছবিতে সত্যিই দারুণ অভিনয় করেছেন স্বাতীলেখা ও ইন্দ্রাণী। তাঁদের পারস্পরিক সম্পর্কের টানাপোড়েন এছবির সম্পদ।
খুব স্বাভাবিক স্বতস্ফূর্ত অভিনয় শতাফ ফিগারের। নিরুচ্চার প্রেমিকের ভূমিকায় গায়ক সৈকত মিত্র তো অভিনেতা হিসেবে একটা আবিষ্কার দর্শকদের কাছে। শুভেন্দু মাইতিও একটা দৃশ্যে চমৎকার।
দেবজ্যোতি বোস ও শুভেন্দু মাইতির সঙ্গীত ছবির সঙ্গে মানানসই। অর্ঘ্যকমল মিত্রর সম্পাদনা, রানা দাশগুপ্তর ফটোগ্রাফি প্রশংসনীয়। উষ্ণতার গল্প, কিন্তু বাংলা ছবিতে এমন বরফ-‌মাখা পাহাড় দেখাও দর্শকদের বড় প্রাপ্তি।

জনপ্রিয়

Back To Top