আজকাল ওয়েবডেস্ক: রাজ্যে সদ্য শেষ হয়েছে বিধানসভা নির্বাচন। ফলাফল প্রকাশ হতেই দেখা যায় রাজ্যের সর্বত্র বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছেন তৃণমূল প্রার্থীরা। তৃতীয় বারের জন্য বাংলার মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন মমতা ব্যানার্জি। আর ভোট প্রচারে ঝড় তুললেও বড় জয় পেল না বিজেপি। ৭৭ আসন পেয়ে বিরোধী দলের ভূমিকায় এবার বিজেপি। তবে বিজেপির নেতারা দলের ফলাফল নিয়ে পর্যালোচনা করতে গিয়ে দেখছেন রাজ্যের বহু আসনে তারা হেরেছেন ২ হাজারের কম ভোটে। আর এই বিষয়েই এবার কোর্টে যাওয়ার ভাবনা তাদের। এ প্রসঙ্গে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘বহু বিধানসভা কেন্দ্রে আমরা ২ হাজারের কম ভোটে হেরেছি। আর ওই বিধানসভা কেন্দ্রগুলির ভোট গণনায় কারচুপি হয়েছে। তাই পুনর্গণনা চেয়ে আদালতে যাব। মামলা করব। পশ্চিম মেদিনীপুর সহ বেশ কয়েকটি জেলায় গত লোকসভা ভোটেও বিজেপি দারুন ফল করেছিল। এবার দেখা যাচ্ছে সেইসব এলাকায় হার হয়েছে দলের। নিশ্চয়ই গণনায় কারচুপি হয়েছে। তাই আদালতে যাব।’ ইতিমধ্যেই ভোটের ফলাফলের দিনই রিকাউন্টিংয়ে জয়ী হন ময়নার বিজেপি প্রার্থী অশোক দিন্দা। অন্যদিকে তৃণমূল কংগ্রেসও নন্দীগ্রামে ভোট গণনা নিয়ে কারচুপির তত্ত্বকে সামনে এনেছেন। নন্দীগ্রামের আসনের ভোট পুনর্গণনার দাবিতে সরব তৃণমূল কংগ্রেস। আদালতে যাওয়ার ভাবনা রয়েছে তৃণমূল নেতৃত্বের। এ প্রসঙ্গে রাজ্যের কৃষিমন্ত্রী শোভনদেব চ্যাটার্জি বলেন, ‘ভোটে হারার সঙ্গে সঙ্গে গণনায় কারচুপি হয়েছে অভিযোগে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি পুনর্গণনা চেয়েছিলেন। কিন্তু নির্বাচন কমিশন পুনর্গণনার দাবি মানেননি। তাই আদালতে যাবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। কিন্তু বিজেপি হেরে গিয়ে এখন মিথ্যা অভিযোগ করছে। ভোটপ্রক্রিয়া শেষের পর এখন এসব বলার কোনও যুক্তি নেই।’ রাজনৈতিক মহলের মতে, পুনর্গণনা নিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে যুযুধান দু‘পক্ষের মধ্যে বাগযুদ্ধ ক্রমশ বাড়ছে।

জনপ্রিয়

Back To Top