আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ সুন্দরবনে ফের বাঘের হানায় মৃত্যু হল এক মৎস্যজীবীর। পুলিস সূত্রে খবর, গোসাবা থেকে ওই মৎস্যজীবী দম্পতি সুন্দরবনের ঝিলায় কাঁকড়া ধরতে গিয়েছিলেন নৌকায়। হঠাৎ বাঘ হামলা করে তাঁদের নৌকায়। মৎস্যজীবীকে টেনে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করতে থাকে বাঘটি। আতঙ্কিত হলেও বুদ্ধি না হারিয়ে স্বামীকে বাঁচাতে ঝাঁপিয়ে পড়েন তাঁর স্ত্রী। নিরস্ত্র মহিলা সেসময় আর কিছু না পেয়ে নৌকার বৈঠা দিয়েই বাঘটিকে পেটাতে থাকেন। ক্রমাগত বৈঠার গুঁতো খেয়ে পিছু হঠে বাঘ। মৎস্যজীবীকে ছেড়ে দিয়ে সাঁতরে বনের ভিতর পালিয়ে যায় সে। জখম মৎস্যজীবীকে এরপর উদ্ধার করে নিয়ে আসেন তাঁর স্ত্রী। কিন্তু বাঘের কামড়ে গুরুতর আঘাত লাগায় মৃত্যু হয়েছে ওই মৎস্যজীবীর।


সুন্দরবনে বাঘের হানায় মৌলে বা মৎস্যজীবীদের মৃত্যু কোনও নতুন ঘটনা নয়। প্রায় প্রতিবছরই মধু আনতে গিয়ে বা মাছ ধরতে গিয়ে মৃত্যু হয় তাঁদের। তাঁদের অভিযোগ, প্রশাসনের তরফে নিরাপত্তার ব্যবস্থা না করার জন্যই এভাবে বিপদের মুখে পড়তে হচ্ছে। অন্যদিকে, প্রশাসনের পাল্টা বক্তব্য, মৌলে বা মৎস্যজীবীদের বারংবার নিষেধ করা হয়েছে বনের অত্যন্ত গভীর অঞ্চল বা কোর এরিয়া, যেখানে বাঘের আস্তানা, সেখানে যেন না যান তাঁরা। কিন্তু বেশি পরিমাণের লোভে জঙ্গলের সেই কোর এরিয়াতেই চলে যাচ্ছেন মৌলে বা মৎস্যজীবীরা। এরইসঙ্গে যুক্ত হয়েছে বসতির কারণে জঙ্গল সাফ করার প্রবণতা, যাতে বাঘের বিচরণক্ষেত্র ক্রমশ কমে আসছে। এবং তার ফলেই বাইরে বেরিয়ে পড়ছে বন্যপ্রাণীরা।    

জনপ্রিয়

Back To Top