আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ শুয়োরের অঙ্গ মানুষের শরীরে প্রতিস্থাপিত হবে। এ আবার সম্ভব নাকি। খবরটা শুনে অনেকেই অবাক হবেন। কিন্তু এটা নাকি সত্যি করে তুলেছেন একদল বিজ্ঞানী। কোয়টোর পারফেকচুয়াল বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষকের দাবি, তাঁরা এমন একটি শুয়োর তৈরি করেছেন যার অঙ্গপ্রতঙ্গ নাকি মানুষের শরীরেও প্রতিস্থাপন করা যাবে। জাপানের জেনোট্রানসপ্লান্টেশন সোসাইটিকে নিজেদের আবিস্কারের সপক্ষে প্রমাণও দিয়েছেন তাঁরা। এই বিশেষ প্রজাতির শুয়োর তৈরি করার জন্য জাপানের একটি বেসরকারি খামারের সঙ্গে চুক্তিও করা হয়েছে। আগামী বছরেই সেই বিশেষ প্রজাতির শুয়োর তৈরি করা শুরু হয়ে যাবে। 
নিউজিল্যান্ড এবং রাশিয়ায় নাকি ইতিমধ্যেই শুয়োরের অঙ্গ মানুষের শরীরে প্রতিস্থাপনের প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গিয়েছে। ২০০টির মত এরকম প্রতিস্থাপন সফলভাবে হয়েছে। যদিও জাপানে এধরনের প্রতিস্থাপন এখনও ঘটেনি। গবেষকরা জানিয়েছেন শুয়োরের অঙ্গ প্রত্যঙ্গ যেভাবে কাজ করে তাতে মানুষের অঙ্গ প্রতঙ্গের কাজের মিল রয়েছে। তবে যেসব শুয়োরের অঙ্গ মানুষের শরীরে প্রতিস্থাপন করা হয় তাদের পরিচর্যা একেবারেই আলাদাভাবে করা হয়। তাদের প্রতিপালন করা হয় অত্যন্ত পরিচ্ছন্নভাবে। এই প্রতিস্থাপনে যাতে মানুষের শরীরে কোনও রকম বিকৃতি বা অসুস্থতা না বাড়ায় সেকারণে ৪০ রকমের পরীক্ষা নিরীক্ষা করে নেওয়া হয়। এই শুয়োরগুলির প্রজনন ঘটানো হয় পরীক্ষাগারে। প্রজননের পরেও শুয়োরগুলিকে নজরদারির মধ্যে রাখা হয়। তাদের খাবারেও বিশেষ নজরদেওয়া হয়। সব প্রক্রিয়া সফল ভাবে সম্পন্ন হলে তবেই সেই শুয়োরের অঙ্গ মানুষের শরীরে প্রতিস্থাপিত করা হয়। ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top