অভিজিৎ চৌধুরি, মালদা, ২০ আগস্ট- মনুয়া–কাণ্ডের ছায়া এবার কালিয়াচকে। স্ত্রীর সঙ্গে এলাকার এক যুবকের অবৈধ সম্পর্কের কথা জেনে ফেলেছিলেন স্বামী। প্রতিবাদ করায় প্রেমিককে সঙ্গে নিয়ে স্বামীকে খুন করার অভিযোগ উঠেছে স্ত্রীর বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে কালিয়াচক থানার নাজিরপুর গ্ৰামে। অভিযুক্ত স্ত্রী গ্ৰেপ্তার হলেও পলাতক তার প্রেমিক।
কালিয়াচক থানার সুজাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের নাজিরপুর গ্ৰামের বাসিন্দা শের মোহাম্মদ ওরফে সেনু (‌৪২) ছিলেন পেশায় রাজমিস্ত্রি। মুম্বইয়ে কাজ করতেন। ২০ বছর আগে সুজাপুরের চামা গ্রামের বাসিন্দা আজিমা বিবির সঙ্গে বিয়ে হয়। তিন ছেলে‌মেয়ে তাঁদের। বড় মেয়ের বিয়ে হয়ে গেছে। ইদ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার বাড়ি ফিরে আসেন সেনু। পুলিস সূত্রে জানা গেছে, বাড়ি ফিরে এক যুবকের সঙ্গে স্ত্রীর অবৈধ সম্পর্কের কথা জানতে পারেন তিনি। এ নিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে তাঁর ঝামেলা হয়। অভিযোগ, স্ত্রী আজিমা ও তার প্রেমিক মুরসেলিম, দু’‌জনে মিলে শ্বাসরোধ করে সেনুকে খুন করে। মৃতের ভাইপো রেজাউল শেখ জানান, সোমবার সকালে শের মোহাম্মদের নিথর দেহ বিছানায় পড়ে ছিল। মুখে রক্তের দাগ দেখে সন্দেহ হয় সকলের। খবর দেওয়া হয় কালিয়াচক থানায়। পুলিস এসে মৃতদেহ উদ্ধার করে নিয়ে যায়। এর পরই স্বামীকে খুন করার অভিযোগ ওঠে তাঁর স্ত্রী এবং স্ত্রীর প্রেমিকের বিরুদ্ধে।
 গ্ৰামবাসীরা আজিমাকে আটকে কালিয়াচক থানায় তুলে দেন। ঘটনার পর থেকে পলাতক তার প্রেমিক মুরসেলিম। তদন্তে নেমে পুলিস ঘটনাস্থল থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে রক্তমাখা একটি গামছা উদ্ধার করে। পুলিসের অনুমান, শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়েছে সেনুকে। গ্রামবাসীরা জানিয়েছেন, সেনু ভিন্‌ রাজ্যে থাকতেন। সেই সুযোগে প্রতিবেশী এক যুবকের সঙ্গে অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিল আজিমা। গ্রামে বেশ কয়েকবার সালিশি সভাও বসে। কিন্তু কোনও ফয়সালা হয়নি। এরই মধ্যে ইদ উপলক্ষে বাড়িতে ফেরেন সেনু। তার পরই খুন হতে হল। পুলিস জানিয়েছে, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর বিষয়টি আরও স্পষ্ট হবে।

অভিযুক্ত আজিমা বিবি

জনপ্রিয়

Back To Top