শুভঙ্কর পাল, শিলিগুড়ি: সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে স্কুল ছাত্রীর ছবি আপলোড করে অশ্লীল মন্তব্য যুবকের। থানায় অভিযোগে দায়েরের পর থেকে ছাত্রীকে স্কুলে যেতে মানা শিক্ষিকাদের। এমনই অভিযোগ ঘিরে নিন্দার ঝড় শিক্ষামহলে। যদিও স্কুলের দাবি ছাত্রীর সুরক্ষা জন্যই স্কুলে আসতে বারণ করা হয়েছে। শিলিগুড়ির দক্ষিণ শান্তিনগরের বাসিন্দা ওই ছাত্রী। রবীন্দ্রনগর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের পড়ে। কিছুদিন আগে ফেসবুকে সোমনাথ দাস নামে এক যুবকের সঙ্গে পরিচয় হয়। অভিযোগ পরিচয়ের পর থেকেই যুবক ছাত্রীকে ব্ল্যাকমেল করে আসছিল। এরপর ছাত্রীর ছবি দিয়ে একটি ভুয়ো অ্যাকাউন্ট খোলা হয়। তারপর অশ্লীল নানা পোস্ট করা হতে থাকে ওই অ্যাকাউন্ট থেকে। ছাত্রীকে হুমকি দেওয়ার পাশাপাশি গালিগালাজও করা হয়। গত ১৪ আগস্ট ছাত্রী এনজেপি থানা ও সাইবার ক্রাইম থানার দ্বারস্থ হয়। ছাত্রীর অভিযোগ এই ঘটনার পর থেকে তাঁকে স্কুলে যেতে মানা করা হয়েছে। ছাত্রী বলে, ‘‌ঘটনার পর স্কুল শিক্ষিকাদের সবটাই বলা হয়। তখন প্রধান শিক্ষিকা ও আরও এক শিক্ষিকা আমাকে কয়েকদিন স্কুলে আসতে বারণ করেন। কেন বারণ করলো তা আমি জানিনা। কিন্তু আমার প্রজেক্ট রয়েছে। সেজন্য স্কুলে যাওয়া খুবই দরকার’‌।‌ পাশাপাশি অভিযুক্ত যুবকের গ্রেপ্তারেরও দাবি জানিয়েছে ছাত্রী। স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা দূর্বা ব্রহ্ম বলেন, ‘ছাত্রীর বাবা‌-‌মায়ের সঙ্গে কথা হয়েছে আমার। আলোচনার পরই থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। তবে আমরা ছাত্রীর সুরক্ষার কথা ভেবেই কয়েকদিন স্কুলে আসতে মানা করেছিলাম। সোমবার ছাত্রীর সঙ্গে আমি কথা বলবো।’‌ জানা গেছে অভিযুক্ত যুবক মালদার বাসিন্দা। তাঁর সন্ধানে ইতিমধ্যেই তদন্ত শুরু করেছেন সাইবার ক্রাইম থানার আধিকারিকেরা। 
 

জনপ্রিয়

Back To Top