গিরিশ মজুমদার, শিলিগুড়ি: শিলিগুড়ির বেঙ্গল সাফারি পার্কে বাঘের খাঁচার মধ্যেই বিকল হয়ে গেল পর্যটকদের গাড়ি। কাছেই ঘোরাফেরা করছে বাঘ। এই অবস্থায় প্রায় এক ঘণ্টা আতঙ্কে কাটালেন পর্যটকরা। বুধবার দুপুরে এমনই ঘটনা ঘটল শিলিগুড়ির এই উন্মুক্ত চিড়িয়াখানায়। দীর্ঘসময় ধরে বাঘের ঘোরাফেরার সাক্ষী রইলেন বেশ কয়েকজন পর্যটক। বেঙ্গল সাফারিতে বুধবার একদল পর্যটক বাঘ–‌সাফারিতে অংশ নেন। এই সাফারিতে পার্কের ভেতরে থাকা বিশেষ গাড়ি নিয়ে যেতে হয়। বড় কাচ লাগানো এই গাড়ি নিয়ে এদিনও ওই পর্যটকরা বের হন। এক সময়ে তাঁরা বাঘের খাঁচার মধ্যেও চলে আসেন। উন্মুক্ত খাঁচার মধ্যে দিয়েই রাস্তা। ওই পথে যেতে যেতেই বাঘের দেখা মেলে। এটাই রোমাঞ্চ। 
খাঁচার ভেতরের রাস্তায় দাঁড়িয়ে পড়ে বাসটি। পাশেই ছিল সাদা একটি বাঘ। গাড়ি দাঁড়াতে দেখে অনেকটা কাছে চলে এসেছিল বাঘটি। চালক রাস্তার মধ্যেই এর পর গাড়িটি দাঁড় করিয়ে স্টার্ট বন্ধ করে দেন। যাতে পর্যটকদের দেখতে আরও সুবিধা হয়। কয়েক মিনিট এখানে গাড়ি বন্ধ রাখা হয়। এরপর গাড়ি চালু করতেই বাধে বিপত্তি। কিছুতেই স্টার্ট নিচ্ছিল না গাড়িটি। অনেক চেষ্টা করেও চালু না করতে পারায়, এতক্ষণের আনন্দ ধীরে ধীরে আতঙ্কের রূপ নেয়। এদিকে গাড়ির চালক যোগাযোগ করেন সাফারির কন্ট্রোল রুমে। সেখান থেকে জানানো হয় গাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে। 
এভাবে বিকল্প গাড়ি সেখানে পৌঁছতে আধ ঘণ্টা পার হয়ে যায়। এই সময়ের মধ্যে কয়েকবার বাঘ এসে দেখা দিয়ে চলে যায়। অনেকটা দূরে বাঘটি চলে যাওয়ার পরেই পর্যটকরা নেমে বিকল্প গাড়িতে ওঠেন। ওই গাড়িতেই খাঁচা থেকে বের হয়ে আসেন। কয়েকজন পর্যটক বলেন, ভয় লাগছিল। আবার কেউ কেউ বলেন, গাড়ি খারাপ হওয়ায় শাপে বর হয়েছে। অনেকটা সময় বাঘের দেখা পেয়েছি। যদিও বেঙ্গল সাফারির ডিরেক্টর ধর্মদেব রাই বলেন, ‘‌গাড়িটিতে যান্ত্রিক সমস্যা দেখা দেওয়ায় চালু হচ্ছিল না। তবে ২০ মিনিটের মধ্যেই আমরা পর্যটকদের অন্য গাড়িতে ফিরিয়ে নিয়ে এসেছি।’‌ 

জনপ্রিয়

Back To Top