শুভঙ্কর পাল,শিলিগুড়ি: আধঘণ্টার প্রবল ঝড়ে বিধ্বস্ত উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন এলাকা। মৃত্যু হল একজনের। জখম বেশ কয়েকজন। শিলিগুড়িতে মঙ্গলবার রাত ১১টা নাগাদ কালবৈশাখী ঝড় শুরু হয়। এরপরই শুরু হয় প্রবল বৃষ্টি। ঝড়ের জেরে বহু জায়গায় পড়ে যায় গাছ। বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পুরো শহর অন্ধকারে ডুবে যায়। যদিও রাতেই বেশ কিছু জায়গায় যুদ্ধকালীন তৎপরতায় গাছ সরিয়ে বিদ্যুৎ পরিষেবা স্বাভাবিক করা হয়। বুধবার সকালে নানা জায়গায় দেখা যায় বড় বড় গাছ পড়ে আছে। আবার কোথাও টিনের চাল উড়ে গেছে। 
দাগাপুরের কাছে টয় ট্রেনের লাইনে একটি বিশাল গাছ পড়ে যায়। সকাল থেকেই গাছ কাটার কাজ শুরু হয়। যে কারণে এদিন জংশন থেকে দার্জিলিংগামী টয় ট্রেনটি দেরিতে ছাড়ে। তবে টয় ট্রেনের লাইনের কোনও ক্ষতি হয়নি বলেই দার্জিলিং হিমালয়ান রেলওয়ে সূত্রে জানানো হয়েছে। ডিএইচআর ডিরেক্টর এম নার্জারি বলেন, ‘‌গাছ পড়ে যাওয়ায় টয় ট্রেন লাইন বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। পরে গাছ সরানোর পর টয় ট্রেন রওনা দিয়েছে।’‌ অন্যদিকে, রাস্তা বন্ধ হয়ে থাকায় পাহাড়ের গাড়ি চলাচলও বন্ধ হয়ে যায়। দুপুরের দিকে যান–চলাচল স্বাভাবিক হয়। অন্যদিকে, মাটিগাড়া, বাগডোগরা, নকশালবাড়ি, খড়িবাড়ি এলাকায় বহু গ্রামে ঝড়ের প্রকোপে বেশ কিছু বাড়ির টিনের চাল উড়ে গেছে। পাশাপাশি গাছ পড়েও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অনেক বাড়ি। 
আলিপুরদুয়ারে পুরনো শিমুল গাছ উপড়ে টিনের চালের বাড়ির ওপর পড়ায় ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় এক বৃদ্ধার। গুরুতর আহত সেই পরিবারের দশম শ্রেণির এক ছাত্রী–‌সহ ৬ জন। আহতদের আলিপুরদুয়ার জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। মৃতার নাম রামদাইক বরাইক (৬৫)। বুধবার মধ্যরাত নাগাদ ঘটনাটি ঘটেছে আলিপুরদুয়ার জেলার ফালাকাটা ব্লকের পারঙ্গের পার এলাকার স্টেশন মোড়ে। ঘটনার খবর পেয়ে ওই পরিবারের হাতে প্রাথমিক সরকারি সাহায্য তুলে দেওয়া হয়। ফালাকাটার বিডিও সুপ্রতীক মজুমদার বলেন, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এলেই ক্ষতিপূরণের জন্য পদক্ষেপ করা হবে। অন্যদিকে, প্রবল ঝড়ে জেলার ভারত–‌ভুটান সীমান্তের পানবাড়ি এলাকায় এসএসবি–‌র একটি স্থায়ী সীমান্ত চৌকিতে জওয়ানদের আবাসনে গাছ ভেঙে পড়ায় ক্ষতি হয় আবাসনের। বুধবার রাতের তুমুল ঝড়বৃষ্টিতে মালবাজার মহকুমার কিছু জায়গায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ওদলাবাড়ি, বাগরাকোট এবং গজলডোবা এলাকায় বহু গাছ ভেঙে পড়েছে। বেশ কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ পরিষেবা বন্ধ হয়ে যায়। বিভিন্ন জায়গায় ছিন্নভিন্ন হয়েছে বড় বড় সাইন বোর্ড এবং ফ্লেক্স। ওদলাবাড়ি শ্মশানঘাট এলাকায় একটি পুজো প্যান্ডেলের চাল উড়ে গেছে। ভেঙে পড়েছে আলোকসজ্জার তোরণ। বেশ কয়েকটি চা–‌বাগানে শেড ট্রি ভেঙে চা–গাছেরও ক্ষতি হয়েছে। মালদাতেও মঙ্গলবার রাতে ব্যাপক ঝড়বৃষ্টি হয়। ঝরে পড়ে প্রচুর আম। একসঙ্গে এত আম ঝরে পড়ায় বেশ চিন্তিত আমচাষিরা।

জনপ্রিয়

Back To Top