সঞ্জয় বিশ্বাস, দার্জিলিং, ১৫ মার্চ- দীর্ঘদিন পর বাংলার মাটিতে ফের প্রকাশ্যে এলেন মিঠুন চক্রবর্তী। যাবতীয় জল্পনা কাটিয়ে সোমবার পয়লা বৈশাখের দিনে কার্শিয়াং সেন্ট অগাস্টিন স্কুলের সামনে নিজের একটি হোটেল উদ্বোধনের অনুষ্ঠানে প্রকাশ্যে দেখা যায় মিঠুনকে। মিঠুন যে পাহাড়ে আসছেন, এই খবর গোপনই রাখা হয়েছিল। হোটেলের চারপাশে ছিল কড়া নিরাপত্তা। এমনকী সাংবাদিকদেরো সেখানে প্রবেশাধিকার ছিল না। কিন্তু মিঠুন হাজির ছিলেন, এই খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে পাহাড়ে। এমনকী, সমতলেও চাঞ্চল্য ছড়িয়ে যায় মিঠুনের ছবিকে কেন্দ্র করে। ওই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত ছিলেন জিটিএ প্রশাসনিক বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান তথা গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার সভাপতি অনীত থাপা। পরে অনীত থাপার প্রেস বিবৃতি মারফত মিঠুনের পাহাড়ে আসার বিষয়টি সামনে আসে। প্রেস বিবৃতিতে অনীত লিখেছেন, মিঠুন চক্রবর্তীর মতো চলচ্চিত্র জগতের প্রথম সারির অভিনেতা দার্জিলিঙে হোটেল শিল্পে বিনিয়োগ করছেন, এটা ভাল খবর। অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ পেয়ে আমি অত্যন্ত খুশি। মিঠুনকে পাহাড়ের বেকার যুবকদের হোটেলে কর্মসংস্থানের জন্য আর্জি জানিয়েছি। তিনি ইতিবাচক সাড়া দিয়েছেন।’‌ অনেক দিন আগে থেকেই শিলিগুড়ির শিবমন্দিরে মিঠুনের হোটেল ‘‌মোনার্ক’ চলছে। এবার পাহাড়েও তৈরি হল মিঠুনের হোটেল। এই হোটেল আগামীদিনে পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণ হয়ে উঠতে পারে, এমনটাই মনে করছেন পর্যটন ব্যবসায়ীরা। অনিত থাপা জানিয়েছেন, ‘‌পাহাড় এই মুহূর্তে শান্ত। রাজ্য সরকারের সহযোগিতায় পাহাড়ে বিভিন্ন উন্নয়নের কাজ হচ্ছে। আমরা মিঠুনকে পাহাড়ে পর্যটনশিল্পে আরও বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়েছি।’‌ চার বছরের বেশি সময় ধরে প্রকাশ্যে আসেননি মিঠুন চক্রবর্তী। এমনকী নিজের ফিল্মের প্রমোশনেও দেখা যেত না। এই রাজ্য থেকে রাজ্যসভার সদস্য হয়েছিলেন ২০১৪ সালে। কিন্তু তারপর থেকেই নানা কারণে নিজেকে গুটিয়ে রাখেন। ২০১৬ তে রাজ্যসভা থেকে পদত্যাগও করেন। বাংলার সঙ্গে কার্যত কোনও সম্পর্কি ছিল না। প্রায় ধরাছোঁয়ার বাইরেই ছিলেন। সেই মিঠুনের আত্মপ্রকাশ রীতিমতো চাঞ্চল্য তৈরি করতেই পারে। 
মাঝে চিকিৎসার জন্য তিনি আমেরিকাতেও ছিলেন বলে শোনা যায়। তঁার ভগ্ন স্বাস্থ্য নিয়েও নানা জল্পনা উঠে আসে। কেরলেও তিনি পিঠের ব্যথার জন্য বিশেষ আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা করাচ্ছিলেন বলেও জানা গেছে। সম্প্রতি লালবাহাদুর শাস্ত্রীর মৃত্যু রহস্য নিয়ে বিবেক অগ্নিহোত্রীর একটি ছবিতে (‌দ্য তাসখন্দ ফাইলস)‌ অভিনয় করেন মিঠুন। বেশ কিছু দিন অভিনয় থেকে দূরে থাকার পর এই সিনেমাতে অভিনযের মধ্যে দিয়েই মিঠুন ফের অভিনয় জগতে ফিরে আসেন। তবে অভিনয়ের পাশাপাশি হোটেল শিল্পের সঙ্গেও দীর্ঘ দিন ধরে জড়িত এই অভিনেতা। বাংলার প্রতি আলাদা টান আছে মিঠুনের। বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ড খেলাধুলোর সঙ্গে জড়িত ছিলেন তিনি। সারা দেশের পাশাপাশি রাজ্য জুড়েও মিঠুনের অনুরাগীর সংখ্যা এখনও তুঙ্গে। তবে এতদিন বাদে প্রকাশ্যে মিঠুনের কর্মকাণ্ডের খবর ছড়ানোয় অনেকেই আশা করছেন এখন থেকে ফের সামনে আসবেন সুপারস্টার। এদিন মিঠুনের হোটেল উদ্বোধনের খবর সেভাবে ছড়ায়নি। তবুও যাঁরা জানতে পেরেছেন, ইতিউতি ভিড় জমিয়েছেন হোটেলের চারপাশে। তবে কাউকেই হোটেলের ধারেকাছে ঘেঁসতে দেওয়া হয়নি। এমনকী সাংবাদিকদের প্রবেশেও নিষেধাজ্ঞা ছিল। তবে ‌মিঠুনের এই উদ্যোগকে ইতিবাচক বলেই মনে করছে পাহাড়ের পর্যটনমহল। স্থানীয় পর্যটন ব্যবসায়ীদের কথায়, মিঠুনের মতো একজন অভিনেতা কার্শিয়াঙে হোটেল ব্যবসায় বিনিয়োগ করছেন এটা পাহাড়ের সাম্প্রতিক শান্ত-‌স্বাভাবিক-‌গণতান্ত্রিক পরিস্থিতির সম্পর্কে সকলের কাছে ইতিবাচক বার্তা দেবে।

 

নতুন হোটেলের উদ্বোধনে মিঠুন চক্রবর্তীর সঙ্গে অনীত থাপা। সোমবার ​
 

জনপ্রিয়

Back To Top