অভিজিৎ চৌধুরি, মালদা, ১‌৭ জুন- চিকিৎসকদের কর্মবিরতিতে চিকিৎসা পরিষেবা কার্যত ব্যাহত। তারই জেরে সোমবার মালদা মেডিক্যালের জরুরি বিভাগে তিন ঘণ্টা ছটফট করে মৃত্যু হল সাপেকাটা এক শিশুর। এই ঘটনায় মৃত শিশুর পরিবার ও অন্য রোগীর পরিজনদের মধ্যে তুমুল অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়ে। ক্ষুব্ধ রোগীর আত্মীয়দের মনোভাব দেখে আড়াল হয়ে যান নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী এবং সিনিয়র ডাক্তারদের একাংশ। হাসপাতালের বাইরে তুমুল বিক্ষোভ দেখান পরিবারের লোকেরা। পুলিশের তৎপরতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। 
মৃত শিশুর নাম ইন্দ্রজিৎ ঘোষ (৩)। বাড়ি পুরাতন মালদা থানার সারদা কলোনি এলাকায়। এদিন সকালে বাড়ির বারান্দায় খেলা করছিল সে। বাড়ির লোকেদের অলক্ষ্যে শিশুটির হাতে ছোবল মারে একটি সাপ। ঘটনাস্থলে অচৈতন্য হয়ে পড়ে শিশুটি। মুখ দিয়ে গাঁজলা বেরোতে থাকে। পরিবারের লোকেরা তাকে তড়িঘড়ি পুরাতন মালদা থানার মৌলপুর প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যান। সেখান থেকে মালদা মেডিক্যালে স্থানান্তরিত করা হয়। সকাল ন’‌টা থেকে মেডিক্যালের জরুরি বিভাগের সামনে বাবার কোলে যন্ত্রণায় ছটফট করতে থাকে শিশুটি। কান্নাকাটি করেও কোনও চিকিৎসা পরিষেবা পাওয়া যায়নি। দুপুর ১২টা নাগাদ জরুরি বিভাগের এক চিকিৎসক এসে ওই শিশুর মৃত্যুর কথা জানিয়ে দেন। তার পরই অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়ে। 
মালদা মেডিক্যাল কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল ডাঃ অমিত দাঁ বলেন, ‘‌শিশুটিকে সঙ্কটজনক অবস্থায় আনা হয়েছিল। জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসকেরা চেষ্টা করেও শিশুটিকে বাঁচাতে পারেননি। চিকিৎসায় গাফিলতির লিখিত অভিযোগ পেলে নিশ্চয়ই তা খতিয়ে দেখা হবে।’‌

মৃত শিশুকে কোলে নিয়ে কান্নায় ভেঙে  পড়েছেন বাবা। ছবি:‌ প্রতিবেদক‌

জনপ্রিয়

Back To Top