আজকালের প্রতিবেদন, শিলিগুড়ি, ১০ সেপ্টেম্বর- প্রবল বৃষ্টিতে শহর জলমগ্ন হতেই পুরনিগমের বাম বোর্ডের ভূমিকা নিয়ে ক্ষোভ তৃণমূল কাউন্সিলরদের। শহরের বেহাল নিকাশি ব্যবস্থার জন্যই প্রতিবছর শহরবাসীকে সমস্যায় পড়তে হয় বলে অভিযোগ পুরনিগমের বিরোধী দলনেতা রঞ্জন সরকারের। এই পরিস্থিতিতে শাসক–‌‌রিবোধী চাপানউতোরের জেরে ফের পরিস্থিতি সরগরম হয়ে উঠেছে। 
রবিবার রাত থেকে উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলার পাশাপাশি শিলিগুড়িতেও প্রবল বৃষ্টি শুরু হয়। সোমবার সকাল থেকে শহরের বিভিন্ন ওয়ার্ড জলমগ্ন হয়ে পড়ে। যা নিয়ে বাসিন্দারাও ক্ষোভ উগরে দেন। বহু বাড়িতে জল ঢুকে যায়। শহরের নিকাশি ব্যবস্থা নিয়ে এর আগেও বহুবার প্রশ্ন উঠেছে। শিলিগুড়ি জেলা হাসাপাতালের পাশের রাস্তায় হাঁটুজল জমা হওয়ায় সমস্যায় পড়তে হয় রোগীর আত্মীয়দের। বেশকিছু ওষুধের দোকানেও জল ঢুকে পড়ে। কিছুদিন আগে এসজেডিএ চেয়ারম্যান সৌরভ চক্রবর্তী ওই এলাকা পরিদর্শন করে পুরনিগমের নিকাশি ব্যবস্থা নিয়ে ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন। সোমবার বিভিন্ন ওয়ার্ড পরিদর্শনের পর মেয়র বলেন, ‘‌শিলিগুড়ির বিভিন্ন ওয়ার্ডের বেশকিছু এলাকা নিচু থাকায় সেখানে আগাগোড়াই জল জমে। নিকাশি ব্যবস্থা ভাল না থাকলে গোটা শহর জলের তলায় থাকতো। বৃষ্টি কম হলেই নিচু এলাকাগুলি থেকেও জল নেমে যাবে। তবুও আমরা সমস্ত পরিস্থিতি নিয়ে খোঁজখবর রাখছি। পুরকর্মীদের কাছে লাগানো হচ্ছে‌।’‌
 এদিন দুপুরে পুরনিগমের বিভিন্ন দপ্তরের আধিকারিক ও মেয়র পারিষদের নিয়ে আলোচনায় বসেন মেয়র। আলোচনা শেষে সাংবাদিক বৈঠকে বলেন, ‘‌সেচ দপ্তরের সঙ্গে কথা হয়েছে। পানীয় জল পাঠানো হচ্ছে আমাদের তরফে। মহকুমাশাসককে শুকনো খাবার দেওয়ার কথা বলেছি। পুরকর্মীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে।’‌ অন্যদিকে এদিন পুরনিগমের বিরোধী দলনেতা রঞ্জন সরকার বলেন, ‘‌শহরের অবস্থা মোটেই ভাল নেই। মেয়রের ওয়ার্ড জলের তলায়। বহু বাম কাউন্সিলরদের ওয়ার্ড জলমগ্ন। নিকাশি ব্যবস্থা ভাল করার দাবি বহুদিনের।’‌  ‌

টানা বর্ষণে শিলিগুড়ি সংলগ্ন এলাকা জলমগ্ন। ছবি:‌ শৌভিক দাস

জনপ্রিয়

Back To Top