সঞ্জয় বিশ্বাস, দার্জিলিং, ৯ ডিসেম্বর- আরও ১৫ দিন পর ‘‌বড়দিন’। তার আগেই পাহাড়ে পর্যটকের ঢল নামতে শুরু করেছে। সোমবার দু’‌হাজারের বেশি পর্যটক গিয়েছিলেন টাইগার হিলে। শিলিগুড়ি–‌‌দার্জিলিঙের বিভিন্ন পর্যটন সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে, ২০ ডিসেম্বরের পর থেকে পাহাড়ের হোটেলগুলি প্রায় হাউসফুল। এখন থেকেই গমগমে হতে শুরু করেছে। এদিকে, কয়েক দিন থেকে পাহাড়ের আবহাওয়াও বেশ মনোরম। পুজোর পর্যটন মরশুম এবার ছিল জমজমাট। যদিও পুজোর ছুটি শেষ হওয়ার পর কিছুটা ভাটা পড়ে। অবশ্য এটা নতুন কিছু নয়। এই সময়টায় প্রতিবারই ভিড় কিছুটা কমে যায়। আবার ভিড় শুরু হয় বড়দিনের সময়। শীতের রেশ পড়ার পর রোজ সর্বোচ্চ ১০০–‌‌১৫০টি গাড়ি চকবাজার থেকে টাইগার হিল যাচ্ছিল পর্যটক নিয়ে। সোমবার সেই গাড়ির সংখ্যা একলাফে অনেকটাই বেড়ে গেছে। দার্জিলিং ট্রাফিক ওসি দর্জি শেরপা জানান, এদিন টাইগার হিলে ৩৭৫টি গাড়ি গেছে। পাহাড়ের আর হাতেগোনা কয়েকটি স্কুল খোলা আছে। বাকি সব স্কুলে শীতের ছুটি দেওয়া হয়েছে। দোকানে দোকানে হট–‌‌ওয়াটার ব্যাগ কেনার ভিড়। ইস্টার্ন হিমালয়ান ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুর অপারেটর্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি দেবাশিস মৈত্র জানিয়েছেন, ‘‌২০ ডিসেম্বর থেকে হোটেল পাওয়া কঠিন। প্রায় হাউসফুল হয়ে গেছে। দারুণ বুকিং হয়েছে এই মরশুমে।’‌ এদিকে দার্জিলিঙের হোটেল ব্যবসায়ীরা জানান, দার্জিলিঙের পাশাপাশি এবার সান্দাকফুতেও ভিড় জমাচ্ছেন পর্যটকেরা। অনেক নতুন নতুন পর্যটন কেন্দ্রও তৈরি হয়েছে। সেইসব এলাকাতেও হোম স্টে পরিষেবা চালু হয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে সেইসব জায়গার পরিচিতিও হয়েছে। সেখানেও ভিড় জমাচ্ছেন পর্যটকরা। 

ঝলমলে দার্জিলিঙের ম্যাল। ছবি:‌ প্রতিবেদক‌

জনপ্রিয়

Back To Top