অলক সরকার ও সঞ্জয় বিশ্বাস: শান্তির পাহাড়ে এখন সারা বছরই পর্যটন মর‌শুম। স্বাভাবিকভাবে পর্যটকের আনাগোনায় খুব একটা ব্যাঘাত ঘটেনি। কিন্তু গরমের মরশুমে মে মাস থেকে যেভাবে দেশ–‌‌বিদেশের পর্যটকের ঢল নামে, সেটা এখনও চোখে পড়ছে না দার্জিলিঙে। এর একটা কারণ অবশ্যই ভোট, এমনটাই মনে করছেন পর্যটন ব্যবসায়ীরা। যার জন্য দেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ ভোটের ফলাফল পাওয়ার আগে পাহাড়মুখো হচ্ছেন না। এর বাইরেও যে কারণে পর্যটকের সংখ্যা কম, তার জন্য কম উড়ান ও ট্রেনের ভোগান্তিকে দায়ী করছেন অনেকে। তবে এত কিছুর মধ্যেও সমস্ত পর্যটন ব্যবসায়ী ২৩ মে–‌র অপেক্ষায় দিন গুনছেন। মনে করা হচ্ছে, ২৩ মে ভোটের ফলাফল প্রকাশ হওয়ার পর থেকেই পাহাড়ে পর্যটকের ঢল নামবে। 
আপাতত ভারতের সব উড়ান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেট এয়ারওয়েজ। ১৯৯৩ সাল থেকে যাত্রা শুরু করা জেট এয়ারওয়েজ ‌ইন্ডিগো, ‌স্পাইস জেটের মতো সস্তার উড়ান সংস্থার সঙ্গে পাল্লা দিতে না পারায় গতমাস থেকে পরিষেবা বন্ধ করে দেয়। বাগডোগরায় জেট এয়ারওয়েজের ৪টি উড়ান ছিল। সেগুলি বন্ধ থাকায় দূরের পর্যটকদের যাতায়াত অনেকটাই কমেছে। এই যাত্রীর চাপ নেওয়ার মতো বিকল্প ব্যবস্থা এই মুহূর্তে নেই। 
ট্রেনযাত্রীরাও ইদানীং ভোগান্তির মুখে পড়ছেন। লাইন সারাইয়ের জন্য রুট বদলে দেওয়ায় দার্জিলিং মেল, পদাতিকের মতো ট্রেন অনেক দেরিতে পৌঁছচ্ছে। কলকাতা স্পেশাল ট্রেনের মতো কয়েকটি ট্রেন স্থগিত থাকায় সেখানেও চাপ তৈরি হয়েছে। তাই পর্যটকদের আসা–‌যাওয়া নিয়ে সমস্যা তৈরি হয়েছে। এই কারণে মরশুম শুরু হলেও উপচে পড়া পর্যটক এখন দেখা যাচ্ছে না। 
হিমালয়ান হসপিটালিটি অ্যান্ড ট্যুরিজম ডেভেলপমেন্ট নেটওয়ার্ক (‌এইচএইচটিডিএন)–‌ এর অন্যতম কর্মকর্তা সম্রাট সান্যাল জানান, ‘‌উড়ান কমে যাওয়ায় একটা বড় সমস্যা হয়েছে। ট্রেনের সমস্যাও আমাদের ধাক্কা দিচ্ছে। তারপরেও পর্যটক বেশ ভালই আছে পাহাড়ে। আশা করছি, ভোটের ফলাফলের পর পাহাড়ে তিল ধারণের জায়গা থাকবে না।’‌
দার্জিলিং পাহাড়ে এখন বিধানসভা উপনির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত স্থানীয় নেতৃত্ব। কিন্তু পর্যটকেরা বেশ আরামে আয়েসে ঘুরে বেড়াচ্ছেন ম্যাল থেকে ঘুম। দার্জিলিঙের সোনালি হোটেলের ম্যানেজার জীবন দে জানান, পাহাড়ে পর্যটক ভালই আছে। তবে আমরা সকলেই অপেক্ষায় আছি, ভোটের ফলের জন্য। ২৩ মে–র পর এক ধাক্কায় ভিড় অনেক বেড়ে যাবে।‌

জনপ্রিয়

Back To Top