সঞ্জয় বিশ্বাস, দার্জিলিং, ২০ জানুয়ারি- পাহাড় তঁার কাছে নতুন নয়। পাহাড়ের মানুষের সঙ্গে তঁার আত্মীয়তার সম্পর্ক। আর ঠিক এই ছবিটাই সোমবারও দার্জিলিঙে ধরা পড়ল মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির পাহাড়ে পা–রাখাকে কেন্দ্র করে। এদিন কলকাতা থেকে বাগডোগরা বিমানবন্দরে নেমে শিলিগুড়িতে উত্তরবঙ্গ উৎসবের উদ্বোধন করেই সন্ধে নাগাদ সোজা দার্জিলিং পৌঁছে যান মুখ্যমন্ত্রী। এবারের সফরে পাহাড়ে মুখ্যমন্ত্রীর একাধিক কর্মসূচি রয়েছে। তিনি নিজেই শিলিগুড়িতে উত্তরবঙ্গ উৎসবের উদ্বোধনের মঞ্চ থেকে জানিয়ে দেন, ২২ জানুয়ারি দার্জিলিঙে ক্যা–এনআরসি–এনপিআরের বিরুদ্ধে তঁার মিছিল রয়েছে। ২৩ জানুয়ারি দার্জিলিং ম্যালে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর জন্মদিন পালন করে তিনি শিলিগুড়িতে ফিরে আসবেন। 
মুখ্যমন্ত্রী দীর্ঘ দিন ধরেই দার্জিলিং ম্যালে নেতাজির জন্মদিন পালন করে আসছেন। এই অনুষ্ঠান ঘিরে পাহাড়বাসী রীতিমতো উচ্ছ্বসিত। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। গত কয়েকদিন ধরেই এই অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে প্রশাসনিক তৎপরতা তুঙ্গে। এদিন দিনভর ম্যালে অনুষ্ঠান মঞ্চের কাজ চলেছে। ম্যাল রোড–‌সহ দার্জিলিঙের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা ছেয়ে গেছে মুখ্যমন্ত্রীর ছবি লাগানো ব্যানার–ফেস্টুন–হোর্ডিংয়ে। বুধবার মুখ্যমন্ত্রীর মিছিল ঘিরেও পাহাড়ে রেকর্ড জমায়েতের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যেই দার্জিলিঙে মুখ্যমন্ত্রীর মিছিলকে সামনে রেখে লাগাতার প্রচারে নেমেছে মোর্চা ও তৃণমূল। পাহাড়ের বিভিন্ন এলাকায় পৌঁছে দেওয়া হয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর মিছিলের বার্তা। অনেকেই জানিয়েছেন, এভাবে মুখ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে পাহাড়ে আগে কখনও মিছিল হয়নি। সুতরাং এই ঐতিহাসিক মিছিলে পা মেলানোর জন্য পাহাড়ের মানুষ রীতিমতো উত্তেজিত। মোর্চা ও তৃণমূল সূত্রে খবর, মিছিলে যোগ দিতে সকাল থেকেই পাহাড়মুখো হবেন প্রত্যন্ত এলাকার বাসিন্দারা। তৃণমূলের দখলে থাকা মিরিক পুরসভা এলাকা থেকেও বহু মানুষের মিছিলে যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে। সব মিলিয়ে এক বিপুল জমায়েত হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। মিছিলের কথা মাথায় রেখে পাহাড়ের যান চলাচল ব্যবস্থা স্বাভাবিক রাখতে উদ্যোগ নিচ্ছে প্রশাসনও। 


 

জনপ্রিয়

Back To Top