আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ জঙ্গিদমন অভিযানে ফের বড়সড় সাফল্য পেল ভারতীয় সেনা। দু’‌পক্ষের গোলাগুলির পর জম্মু–কাশ্মীরে নিকেশ হয়েছে জঙ্গি সংগঠন লস্কর–ই–তৈবার অন্যতম শীর্ষ কমান্ডার আসিফ। ঘটনাস্থল থেকে বহু আগ্নেয়াস্ত্র ও নথি উদ্ধার হয়েছে বলা জানা গিয়েছে।
বুধবার কাশ্মীরের সোপোরে আসিফের লুকিয়ে থাকার খবর জানতে পারে ভারতীয় সেনা। তারপরই ওই জঙ্গি নেতার ডেরা ঘিরে ফেলে সেনা ও পুলিশের যৌথবাহিনী। নিরাপত্তারক্ষীদের উপস্থিতির কথা জানতে গাড়ি নিয়ে পালাতে যায় আসিফ। কিন্তু চেকপোস্টের কাছে তার গাড়ি ঘিরে ফেলে সেনা। মরিয়া হয়ে গুলি চালাতে শুরু করে আসিফ। যদিও শেষরক্ষা হয়নি। বেশ কিছুক্ষণ লড়াইয়ের পর সেনার গুলিতে খতম হয় পাক মদতপুষ্ট ওই জঙ্গিনেতা। উপত্যকায় একাধিক নাশকতা ও খুনের নেপথ্যে ছিল আসিফ। বহুদিন ধরেই এই মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গিকে পাকড়াও করার চেষ্টা চলছিল। শেষমেশ তা সফল হল। 
সোপোরে কিছুদিন আগেই নিরাপত্তারক্ষী বাহিনীর সঙ্গে গুলির লড়াই হয় আসিফের। এই গুলির লড়াইয়ে এক পরিবারের তিনজন জখম হন। তাঁর মধ্যে এক শিশুকন্যাও ছিল। 
উল্লেখ্য, সদ্য কাশ্মীরে গ্রেপ্তার করা হয়েছে আট জন লস্কর–ই–তৈবা জঙ্গিকে। সোমবার দক্ষিণ কাশ্মীরের সোপোর থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে জম্মু–কাশ্মীর পুলিশের সন্ত্রাসদমন শাখা। বেশ কিছুদিন ধরে ওই এলাকায় তারা গা ঢাকা দিয়েছিল বলে অভিযোগ। কেউ যাতে তাদের ব্যাপারে মুখ না খোলে সেজন্য স্থানীয় বাসিন্দাদের ভয় দেখানো এবং প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছিল তারা। গ্রেপ্তার হওয়া জঙ্গিদের মধ্যে কারা পাকিস্তানের বাসিন্দা তা চিহ্নিত করতে জেরা চলছে। ধর্মীয় হিংসা যাতে না ছড়ায় সেজন্য উপত্যকায় কোথাও মঙ্গলবার মহরমের তাজিয়া ও শোভাযাত্রা বের করতে দেয়নি পুলিশ। এর মধ্যেই আগাম খবরের ভিত্তিতে রুটিনমাফিক জঙ্গি দমন অভিযান চালায় পুলিশ।

জনপ্রিয়

Back To Top