আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ২৬ বছর বয়সী এক জুনিয়র চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে। অথচ তাঁর কোভিড নমুনার রিপোর্ট দু’বার নেগেটিভ এসেছিল। বৃহস্পতিবার সকালে দিল্লিতে মৃত্যু হয় তাঁর। এই ঘটনা সামনে আসায় অবাক হচ্ছেন চিকিৎসকরা।
জানা গিয়েছে, মৃত্যুর কিছুক্ষণ আগে বুকে ব্যথা অনুভব করেন ডক্টর অভিষেক ভায়ানা। এই কথা নিজের বড় ভাই আমনকে বলেন তিনি। আমনকে তিনি বলেন, ‘‌আমার বুকে ব্যথা হচ্ছে। শ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছে। আমার সব উপসর্গ করোনাভাইরাসের। আমি ১০০ শতাংশ করোনায় আক্রান্ত হয়েছি।’‌ 
পরিবারের লোকেরা জানিয়েছেন, অভিষেকের শরীরে ১০ দিন আগে উপসর্গ ধরা পড়ে। গলা ব্যথা, কাশি হচ্ছিল অভিষেকের। পরিবারের মনে হয়েছিল ভাইরাল জ্বর হয়েছে। তাই তাঁকে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। একজন চেস্ট স্পেশ্যালিস্টকে দেখিয়ে বুকের এক্স–রে করেও দেখা হয় অভিষেকের। তাতে দেখা যায় বুকে সংক্রমণ হয়েছে তাঁর। কিন্তু বারবার অভিষেক বলছিলেন, তাঁর উপসর্গ বুকে সংক্রমণের নয়, তাঁর উপসর্গ করোনাভাইরাসের সংক্রমণের।
বৃহস্পতিবার থেকে অবস্থা খারাপ হতে শুরু করে অভিষেকের। তখনই প্রথমে স্থানীয় একটি হাসপাতালে তাঁকে নিয়ে যান পরিবারের লোকেরা। তাঁর দাদা জানিয়েছেন, ‘‌বেশ ভাল শরীর স্বাস্থ্য ছিল আমার ভাইয়ের। কিন্তু ওর দু’বার রিপোর্ট নেগেটিভ কেন এল সেটাই বুঝতে পারছি না। হয়তো অন্য কোনও কারণে এটা হয়েছে। শেষ পর্যন্ত শ্বাস নিতে পারছে না বলতে থাকে ভাই। চিকিৎসকরা যতক্ষণে অক্সিজেন দেন, ততক্ষণে সব শেষ হয়ে গিয়েছে।’‌ 
দিল্লিতে মৌলানা আজাদ ইনস্টিটিউট ফর ডেন্টাল সায়েন্সেসের ওরাল সার্জারি বিভাগে কর্মরত ছিলেন অভিষেক। 
কলেজের এক সিনিয়র চিকিৎসক জানিয়েছেন, ‘‌করোনাভাইরাসের সব উপসর্গ থাকা সত্ত্বেও দু’বার তাঁর পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে অভিষেকের।’‌

জনপ্রিয়

Back To Top