আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ছ’‌মাস পর বিশ্বের সপ্তম আশ্চর্যের দরজা খুলল পর্যটকদের জন্য। করোনার প্রকোপে শাহজাহান–মুমতাজের প্রেমের আঙিনায় এতদিন পা পড়েনি মানু্ষের। আবার মানুষের আওয়াজে জেগে উঠল তাজমহল। কিন্তু করোনার দাপট এক ফোঁটাও কমেনি দেশে। তাই সমস্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। নির্দেশ কেন্দ্রের। 
প্রথমে অনলাইনের মাধ্যমে ১৬০টি টিকিট বুক হয় সোমবার। ছ’‌মাস পর প্রথম তাজমহলে যাঁর পা পড়ে, তিনি ভারতীয় নন। তাইওয়ানের এক পর্যটক। আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার এক আধিকারিকের বক্তব্য, পর্যটকদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা ছিল বলে বিশ্বের এই সপ্তম আশ্চর্যের প্রতি অবহেলা করা হয়নি। যত্ন নেওয়া হয়েছে নিয়মিত। জানা গেল, ভেতরের সমাধি দেখার জন্য তত ভিড় হয়নি। কিন্তু তার বাইরেটা ঘুরতে এসেছেন অনেকে। ছবি তোলার জন্য। এবং সামনের অপূর্ব বাগানে সময় কাটানোর জন্য। এই সিদ্ধান্তে উপকৃত হয়েছেন তাজমহল লাগোয়া দোকানগুলির মালিকেরা। ফের ব্যবসা শুরু করা যেতে পারে বলে আশা তাঁদের।  
দেখে নেওয়া যাক কেন্দ্রের গাইডলাইন–
তাজমহল খোলা থাকবে সূ্র্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত। প্রতিদিন দু’টি শিফটে মোট পাঁচ হাজার জনের প্রবেশ করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। মধ্যাহ্নভোজের আগে ও পরে। ‌টিকিট কাটতে হবে অনলাইনে। হাতে করে টিকিট দেওয়ার কোনও ব্যবস্থা রাখা যাবে না। পর্যটকেরা কিউআর কোড স্ক্যান করে টিকিট কাটতে পারেন অথবা আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার মোবাইল অ্যাপ বা ওয়েবসাইট থেকেও মিলবে তাজমহলে ঢোকার টিকিট। ভেতরের সমাধি দেখার জন্য একসঙ্গে সর্বোচ্চ পাঁচজনকে অনুমতি দেওয়া হবে। একটি অ্যাম্বুলেন্স সর্বদা দাঁড়িয়ে থাকবে তাজমহলের গেটের বাইরে। কোনও ভারি মালপত্র নিয়ে প্রবেশ করা যাবে না।

জনপ্রিয়

Back To Top