আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ শনিবার মধ্যরাত থেকে রবিবার রাত ১০টা পর্যন্ত কোনও প্যাসেঞ্জার ট্রেন চলবে না। তবে যে প্যাসেঞ্জার ট্রেনগুলি শনিবার সকাল সাতটার আগেই ছেড়েছিল, সেগুলি তাদের যাত্রা সম্পন্ন করবে। তবে সেগুলির মধ্যেও যে প্যাসেঞ্জার ট্রেনগুলি প্রায় খালি সেগুলির যাত্রাপথ প্রয়োজনে ছোট করা হতে পারে। প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত ‘‌জনতা কার্ফু’‌ মেনেই শুক্রবার সন্ধ্যায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে এই ঘোষণা করল রেলওয়ে বোর্ড। বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, যে সব মেল, এক্সপ্রেস এবং ইন্টারসিটি এক্সপ্রেস রবিবার ভোর চারটে থেকে রাত ১০টার মধ্যে ছাড়ার কথা ছিল সেগুলিও রবিবার বাতিল থাকবে। কিন্তু যে ট্রেনগুলি সকাল সাতটায় ওই দিন চলবে সেগুলি যাত্রা সম্পন্ন করবে। ট্রেন বাতিলের জন্য সব যাত্রীদেরই টিকিটের টাকা ফেরত দেওয়া হবে। কলকাতা, দিল্লি, মুম্বই, চেন্নাই এবং সেকেন্দরাবাদের শহরতলিতে শুধু অত্যন্ত প্রয়োজনীয় কয়েকটি ট্রেন ছাড়া সব ট্রেনের সংখ্যাই নূন্যতম করা হবে রবিবার। ওই সব ট্রেনের যাত্রীদের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে খাবার, জল, এবং আশ্রয়ের ব্যবস্থা রাখার নির্দেশ স্টেশনগুলোকে দিয়েছে রেল। এদিনই আইআরসিটিসি–র তরফে ঘোষণা করা হয়েছে, নতুন নির্দেশিকা না আসা পর্যন্ত দেশের সব কটি মেল এবং এক্সপ্রেস ট্রেনের খাবার পরিষেবা, জনআহার, স্টেশনের খাবারের দোকানগুলিও বন্ধ থাকছে।
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বৃহস্পতিবার দেশবাসীর কাছে আবেদন করেছিলেন, রবিবার সকাল সকাল সাতটা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত যেন দেশবাসী নিজেরাই অপ্রয়োজনে ঘর থেকে না বেরোন। জনতারই লাগু করা এই কার্ফু পরিস্থিতিকে ‘‌জনতা কার্ফু’‌ বলে অভিহিত করেন তিনি।
ছবি:‌ এএনআই‌‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top