আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‘‌যদি নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশ হয়ে যায়, আমি ধর্ম বদলে মুসলিম হয়ে যাব।’‌ বললেন প্রাক্তন আইএএস অফিসার হর্ষ মন্দর। শুধু হর্ষ মন্দরই নন, একাধিক প্রাক্তন আইএএস অফিসার সরকারের নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরুদ্ধে অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দিলেন সাধারণ মানুষকে। সোমবার সাত ঘণ্টার তর্কের পর লোকসভা থেকে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশ হয়ে যায়। এই বিলে ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর থেকে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে আসা মানুষের নাম নাগরিকপঞ্জিতে অন্তর্ভুক্ত করা হবে বলা হয়েছে। কিন্তু কেবলমাত্র হিন্দু, জৈন, শিখ, খ্রিস্টান, পার্সি ও বৌদ্ধধর্মালম্বি মানুষের কথা উল্লেখ করা হলেও মুসলিম ধর্মের মানুষদের কথা বলা হয়নি। দেশের অনেকের বক্তব্য এই বিলের আসল উদ্দেশ্য ধর্মের ভিত্তিতে মানুষ ভেদাভেদ। এর মধ্যে দেশের কল্যাণের কথা ভাবা হয়নি। বুধবার রাজ্যসভায় এই বিল করা হবে। 
এই বিলের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন দেশের বহু মানুষ। সমস্ত জায়গায় বিক্ষোভের আগুন জ্বলছে। টুইটারে প্রাক্তন আইএএস অফিসার হর্ষ মন্দর লিখলেন, ‘যদি নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশ হয়ে যায়, আমি ধর্ম বদলে মুসলিম হয়ে যাব। নাগরিকপঞ্জির জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে অস্বীকার করব। আমার যেই মুসলিম বন্ধুরা কাগজপত্র জমা দিতে পারবেন না, তাঁদের মতো একই শাস্তি পেতে চাই আমিও।‌’ ‌প্রাক্তন আইএএস অফিসার শশীকান্ত সেনথিল জম্মু ও কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা জারি হওয়ার পরেই তাঁর প্রতিবাদ হিসেবে ইস্তফা দিয়েছেন। তিনিও এখন চুপ থাকলেন না। আমিত শাহকে খোলা চিঠি লিখে জানালেন, প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা না দিয়ে তিনি এনারসি–এর বিরোধিতা করবেন। তার জন্য যা শাস্তি হবে, তিনি তা মাথা পেতে নেবেন। কিন্তু সরকারের এই অমানবিক সিদ্ধান্তে তিনি চুপ থাকবেন না। প্রান্তিকদের পাশে দাঁড়াবেন। জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ও রাজনৈতিক কর্মী কানহাইয়া কুমার ও উমর খালিদও এই আন্দোলনে যোগ দিয়ে দেশের সাধারণ মানুষকে অসহযোগ আন্দোলনে নামতে অনুরোধ করলেন। 

জনপ্রিয়

Back To Top