আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‘‌‌যে বোতামই টিপুন, ভোট যাবে পদ্মফুলেই’‌। নির্বাচনী প্রচারে এসে হরিয়ানার এক বিধায়কের এই মন্তব্যে তীব্র বিতর্ক শুরু হয়েছে দেশজুড়ে। হরিয়ানার আসান্ধ বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী বকশিস সিংয়ের নির্বাচনী প্রচারের একটি ভিডিও টুইটারে শেয়ার করেছেন রাহুল গান্ধী। সেই ভিডিওটিতে বিজেপি বিধায়কের দাবি,‌ ‘‌আপনারা যাঁকেই ভোট দিন, আমরা ঠিক জেনে যাব কে কাকে ভোট দিয়েছে। মোদিজি ভীষণ বুদ্ধিমান। খাট্টারজীও। আপনারা যাঁকেই ভোট দিন, ভোট কিন্তু বিজেপিতেই যাবে।’‌ বিজেপি বিধায়কের এই বক্তব্য সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হতেই শোরগোল পড়ে যায়। অনেকেই মহারাষ্ট্র ও হরিয়ানার বিধানসভা ভোটে ইভিএম কারচুপির গন্ধ পাচ্ছেন। রাজনৈতিক মহলেই জল্পনা চলছে। লোকসভা ভোটের পরও কংগ্রেস বিজেপির বিরুদ্ধে ইভিএম কারচুপির অভিযোগ তুলেছিল।

২০১৯–এর লোকসভা ভোটের আগে অমিত শাহ দাবি করেছিলেন, বিজেপি ৩০৩ থেকে ৩০৯টি আসন পাবে। ঠিক তাই ঘটেছিল। বিজেপি একাই ৩০৩টি আসন পেয়েছিল লোকসভা ভোটে। এবার মহারাষ্ট্রের বিধানসভা ভোটে বিজেপি দাবি করেছে, বিজেপি ও শিবসেনা জোট মোট ২৮৮টি আসনের মধ্যে ২২৫টিরও বেশি আসনে জয়লাভ করবে। তাই ভোট ফলাফলের দিকেই তাকিয়ে কংগ্রেস।  
সোমবার মহারাষ্ট্রে ভোট গ্রহণ প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার পর থেকেই রত্নাগিরি ও ভান্দ্রা জেলার একাধিক বুথে ইভিএম খারাপ হয়ে যাওয়ার খবর মিলেছে। ফলে ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়া আটকে যায়। নির্বাচন কমিশনে ১৮৭টি অভিযোগও জমা করেছে রাজ্য কংগ্রেস। রত্নাগিরির ধমনগাঁও গ্রামে সকাল আট’‌টা থেকে দশ’‌টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়া বন্ধ ছিল। যান্ত্রিক সমস্যার কারণে মুম্বইয়ের দুরদর্শন অফিসের কাছের বুথেও লম্বা লাইন পড়ে গিয়েছিল। 

জনপ্রিয়

Back To Top